আপাতত রাজ্যে লোকাল ট্রেন পরিষেবা চালুর সম্ভাবনা নেই, নির্দেশিকায় জানাল কেন্দ্র

348
আপাতত রাজ্যে লোকাল ট্রেন পরিষেবা চালুর সম্ভাবনা নেই, নির্দেশিকায় জানাল কেন্দ্র 1

ওয়েব ডেস্ক : গত মার্চ মাস থেকে বন্ধ ট্রেন পরিষেবা। এর জেরে একপ্রকার নাজেহাল অবস্থা নিত্যযাত্রীদের। শহরতলী থেকে প্রতিদিন বহু মানুষ পেশার টানে কলকাতায় যান। ফলে একমাত্র ভরসা লোকাল ট্রেন। কিন্তু করোনা সংক্রমণ ছড়ানোর ভয়ে দীর্ঘ কয়েকমাস লোকাল ট্রেন বন্ধ থাকায় স্বাভাবিকভাবেই ক্রমশ ঝিমিয়ে পড়ছে শহরতলীর অর্থনৈতিক অবস্থা। তবে এই মূহুর্তে গোটা দেশে করোনা সংক্রমণের গতি অনেকটাই কম। কিন্তু করোনার গতি কমলেও আপাতত লোকাল ট্রেন চালানোর অনুমতি দিল না কেন্দ্রীয় সরকার।

আরও পড়ুন -  জ্বলদর্চির নববর্ষ আসলে শুশ্রূষাকাব্য

পুজোর আগে ট্রেন চালানোর সম্ভাবনার কথা শোনা গিয়েছিল। এর জেরে সাধারণ মানুষ আশা করেছিল পুজোর আগে না হলেও পুজোর পরে লোকাল ট্রেন পরিষেবা চালু করা হবে৷ এদিকে মঙ্গলবার কেন্দ্রের তরফে আনলক ৫ এর নির্দেশিকা প্রকাশ করা হয়েছে। কিন্তু সেই নির্দেশিকায় লোকাল ট্রেন চালানোর কথা উল্লেখ নেই। ফলে দুর্গাপুজো, দীপাবলির পরেও যে রেলের তরফে লোকাল ট্রেন পরিষেবা পুনরায় সচল করার কোনো পরিকল্পনাই নেই তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। ফলে সাধারণ মানুষের আশা জল ঢাললো কেন্দ্র সরকার।

আপাতত রাজ্যে লোকাল ট্রেন পরিষেবা চালুর সম্ভাবনা নেই, নির্দেশিকায় জানাল কেন্দ্র 2

এদিকে লোকাল ট্রেন চালানোর জন্য পুজোর আগে তোড়জোড় শুরু করেছিল ট্রেন। এমনকি কোন বিধি মেনে ট্রেন চলবে তা ঠিক করতে রাজ্যের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের কাছে চিঠিও দেওয়া হয়েছিল। এমনকি হুগলি, চুঁচুড়া সহ একাধিক স্টেশনে ট্রেন চালানো নিয়ে সাধারণ যাত্রীদের বিক্ষোভ করতেও দেখা যায়। এর জেরে পুজোর আগেই রাজ্যে লোকাল ট্রেন পরিষেবা চালু করার অনুমতি চেয়ে কেন্দ্রকে চিঠি লিখেছিলেন বিজেপির রাজ্যসভার সাংসদ স্বপন দাশগুপ্ত। কিন্তু লোকাল ট্রেন চালানোর সেই প্রস্তাব খারিজ করে দেয় নবান্ন। ফলে আপাতত কেন্দ্রের নির্দেশ অনুসারে আগামী ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত এ রাজ্যে কোনো লোকাল ট্রেন চলার সম্ভাবনা নেই বলেই জানা গিয়েছে।