মালদায় খোদ প্রার্থীকেই শ্যুট-আউট! ভরসন্ধ্যায় গুলিবিদ্ধ বিজেপি প্রার্থী গোপাল সাহা

261
মালদায় খোদ প্রার্থীকেই শ্যুট-আউট! ভরসন্ধ্যায় গুলিবিদ্ধ বিজেপি প্রার্থী গোপাল সাহা 1

নিজস্ব সংবাদদাতা: ভর সন্ধ্যায় শ্যুট-আউটের শিকার হলেন খোদ প্রার্থী! বাংলার ইতিহাসে এও এক নজিরবিহীন ঘটনা হয়ে রইল রবিবার। খুব কাছ থেকে গলা লক্ষ্য করে গুলি চালানো হল মালদার বিজেপি প্রার্থী গোপাল চন্দ্র সাহাকে। আপাতত মালদহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়েছে তাঁকে। সেখানেই অপারেশনের প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে বলে জানা গেছে। স্বাভাবিক ভাবেই অভিযোগের তির তৃণমূলের দিকে। যদিও অভিযোগ অস্বীকার করেছে তৃনমূল। গোপাল চন্দ্র সাহার অবস্থা আপাতত স্থিতিশীল হলেও সঙ্কট কাটেনি বলেই জানা গেছে।

মালদায় খোদ প্রার্থীকেই শ্যুট-আউট! ভরসন্ধ্যায় গুলিবিদ্ধ বিজেপি প্রার্থী গোপাল সাহা 2

রবিবার পুরাতন মালদার সাহাপুর বাজারে সভা করে বিজেপি কার্যালয় থেকে বেরিয়ে গাড়িতে ওঠার সময় সন্ধ্যা সাড়ে ৮টা থেকে ৮টা ৪৫ মিনিট নাগাদ তাঁকে গুলি করা হয় বলেই জানা গেছে। ঘটনাটি মালদা থানার ঝন্টু মোড়ে এলাকাতে গুলি চালান হয়েছে। তাঁর গলায় গুলি করা হয়। গলার বাঁ দিকে বেশ কিছুটা ক্ষত হয়েছে বলে জানা যাচ্ছে।

মালদায় খোদ প্রার্থীকেই শ্যুট-আউট! ভরসন্ধ্যায় গুলিবিদ্ধ বিজেপি প্রার্থী গোপাল সাহা 3

এই ঘটনায় বিজেপি সাংসদ দেবশ্রী চৌধুরী বলেন, “গোপাল চন্দ্র সাহা আজ সন্ধ্যা সাড়ে আটটা নাগাদ প্রচার শেষ করে সবে গাড়িতে উঠতে যাবেন এই সময় তাঁকে গুলি করা হয়। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বহিরাগত বলে অনেক কথা বলেন। তিনি দেখছেন রাজ্যের আইনশৃংখলা পরিস্থিতি কোন জায়গায় পৌঁছেছে। একজন প্রার্থীর নিরাপত্তা নেই। তাহলে রাজ্যের সাধারণ মানুষের নিরাপত্তা কোথায়?” যদিও তিনি সরাসরি কারও দিকে আঙুল তোলেননি। দেবশ্রী চৌধুরী বলেছেন, “আমি একজন দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংসদ। আমি না জেনে আন্দাজে বলতে পারি না কে বা করা গুলি করেছে। তবে কী করে সন্ধ্যা বেলায় পুরাতন মালদার সাহাপুর বাজারে দুষ্কৃতীরা এসে প্রার্থীকে গুলি চালায়? আসলে গোপাল চন্দ্র সাহা বিজেপি-র প্রার্থী হিসেবে জিতবেন। সেটা জেনেই তাঁর ওপর আক্রমণ করা হয়েছে।”

বিজেপি কর্মীদের অবশ্য দাবি গুলি চালিয়েছে তৃনমূলের দুষ্কৃতিরাই। বিজেপির অন্য একটি অংশের অবশ্য দাবি ঘটনার পেছনে কংগ্রেসের দুষ্কৃতিরাও থাকতে পারে। সাহাকে প্রানে মারার উদ্দেশ্য নিয়েই এই শ্যুটআউট বলে পুরাতন মালদার বিজেপি কর্মীদের অভিযোগ। তবে ইংরেজবাজার বিধানসভা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী কৃষ্ণেন্দুনারায়ণ চৌধুরী বলেন, “তৃণমূলের কেউ এই গুলি করেনি। তবে যারাই এই কাজ করে থাকুক এটা নিন্দনীয় ঘটনা। আমি চাই অপরাধী যে দলেরই হোক তার যেন সাজা হয়। আমি নির্বাচন কমিশনের কাছে আবেদন করবো এই ঘটনার জন্য উপযুক্ত ব্যবস্থা নিতে।”

মালদহে বিধানসভা কেন্দ্রে আগামী ২৯ এপ্রিল অর্থাৎ অষ্টম দফায় নির্বাচন। এলাকায় তাই এই মুহূর্তে নির্বাচনী প্রচারে ব্যস্ত সবকটি রাজনৈতিক দল। রবিবার তাই পুরাতন মালদহের সাহাপুর বাজার এলাকায় সভা করছিলেন বিজেপি প্রার্থী গোপালচন্দ্র সাহা। খুব বড় সভা না হলেও সেখানে উপস্থিত ছিলেন বিজেপি নেতা-কর্মীরা। এছাড়া ছিলেন স্থানীয়রা। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সভা শেষে বাড়ি যাওয়ার উদ্দেশ্যে গাড়িতে ওঠার আগে কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলছিলেন সাহা সেই সময় আচমকাই দুজন অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তি এসে হাজির হন। তারাই পেছন থেকে গুলি চালায় গোপালচন্দ্র সাহার ওপর।

গুলি লাগার সঙ্গে সঙ্গে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন বিজেপি প্রার্থী। সবাই যখন তাঁকে নিয়ে ব্যস্ত তখনই দুষ্কৃতিরা পালিয়ে যায় ঘটনাস্থল থেকে। এরপরই প্রথমে স্থানীয় স্বাস্থ্যকেন্দ্রে এবং পরে সেখান থেকে বিজেপি প্রার্থীকে মালদহ মেডিক্যাল কলেজে নিয়ে আসা হয়। সেখানেই সম্ভবত আহত বিজেপি প্রার্থীর অস্ত্রোপচার করা হবে। প্রয়োজনে তাঁকে চিকিৎসার জন্য কলকাতায় স্থানান্তরিত হতে পারে বলেও জানা গেছে। তবে প্রার্থীর গলায় গুলি লাগার এই ঘটনায় সাহাপুর বাজার এলাকায় রীতিমতো চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। ইতিমধ্যে ঘটনাস্থলে পৌঁছেছে বিরাট পুলিশ বাহিনী। অভিযুক্তরা অধরাই রয়ে গেছে।

Previous articleরাজ্যে বহিরাগত প্রবেশের ক্ষেত্রে RT-PCR টেস্ট বাধ্যতামূলক করলেন মমতা; কেবলই করোনা রুখতে, না কোনও রাজনৈতিক অভিসন্ধি
Next articleআজকের রাশিফল একনজরে