ফের লক ডাউনের পথে মালদা,উত্তর ২৪পরগনা, লকডাউনে কি ফিরতে হবে রাজ্যকেও

184
Advertisement

বিশেষ সংবাদদাতা: রাজ্যে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা প্রতিদিনই উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে, বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যাও। এই পরিস্থিতিতে ফের কী লকডাউনের পথে ফিরতে হবে রাজ্যকে। ইতিমধ্যেই তামিলনাড়ু সহ বেশ কয়েকটি রাজ্য নিজেদের মূল কয়েকটি শহরে পূর্ন লকডাউন ফিরিয়ে এনেছে। সেই পথেই গিয়ে এবার এ রাজ্যেও ‘পূর্ণ লকডাউনের’ পথে হাঁটতে চলেছে মালদা জেলা । ইংরেজ বাজার ও পুরাতন মালদহ পুরসভা এলাকায় নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের দোকান ছাড়া বাকি সব দোকান বন্ধ থাকবে । একই ভাবে উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলাতেও করোনা আক্রান্তর সংখ্যা বাড়ছে তাই এই জেলাতেও ‘ আনলকের’ মাঝে নতুন করে লকডাউনের প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে ।

Advertisement

এর পাশাপাশি উত্তর দিনাজপুর জেলার ডালখোলা পুরসভা এলাকায় একদিনের মধ্যে ১৬জন করোনা আক্রান্তর সন্ধান পাওয়া যাওয়ার পর ওই পুরসভা এলাকাতেও লকডাউন চালুর কথা ভাবা হচ্ছে । করোনা আক্রান্তর সংখ্যা বাড়ছে দার্জিলিং জেলাতেও । গত চব্বিশ ঘণ্টার মধ্যে শিলিগুড়িতে করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে দুজনের । তার জেরে শিলিগুড়ির ন’টি বাজার আগামী আট দিনের জন্য বন্ধ থাকবে বলে ঘোষণা করা হয়েছে । বন্ধ থাকবে ফুলেশ্বরী বাজারও।
পাশাপাশি জেলায় জেলায় করোনা আক্রান্তর সংখ্যা বাড়তে থাকার জন্য বিভিন্ন এলাকায় নতুন করে লকডাউনের প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে ।

Advertisement
Advertisement

জানা গিয়েছে যে মালদা জেলাতে গত ৪৮ ঘণ্টায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন পঞ্চাশ জন। এই জেলায় মোট আক্রান্ত আটশো ছাড়িয়েছে । করোনা আক্রান্ত হয়েছেন মালদার মহকুমা শাসক ও হবিবপুর থানার ওসি । এই পরিস্থিতিতে পুরাতন মালদা ও ইংরেজ বাজার পুরসভা এলাকায় পূর্ণ লকডাউনের প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে । সোমবার জেলার প্রশাসনিক কর্মকর্তা ও ব্যবসায়ী সংগঠন সহ বিভিন্ন মহলের সঙ্গে আলোচনা করেন জেলা শাসক রাজর্ষি মিত্র । সেখানেই এই প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে ও তা অনুমোদনের জন্য রাজ্য সরকারের কাছে পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন জেলাশাসক ।

মালদা জেলার প্রশাসনের এই প্রস্তাবকে সমর্থন করেছে মার্চেন্ট চেম্বার অব মালদা। এই সংগঠনের পক্ষ থেকে জয়ন্ত কুন্ডু জানিয়েছেন যে নতুন করে লকডাউন করা হলে তারা প্রশাসনকে সাহায্য করবে । ” নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের দোকান ছাড়া বাকি সব দোকান, অটো, টোটো, রিকশা সব কিছু বন্ধ রাখা হবে বলে প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে । পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে লকডাউন ছাড়া অন্য কোন পথ নেই,’ বলে জানিয়েছেন তিনি । লকডাউন শুরু হলে কোন দোকান কতক্ষণ খোলা থাকবে তাও জানিয়ে দেওয়া হবে । বাজার সকাল এগারোটার মধ্যে বন্ধ থাকবে বলে প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে ।

এই ভাবেই উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলায় গত চব্বিশ ঘণ্টা র মধ্যে ১৮১ জন করোনা আক্রান্ত হওয়ার ও সাত জনের মৃত্যুর পরে সেখানেও লকডাউনের প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে । জেলা প্রশাসনের ওই প্রস্তাবে চা দোকান, মিষ্টি দোকান হোটেল, সপিং মল , নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের দোকান ছাড়া বাকি সব দোকান বন্ধ রাখার কথা বলা হয়েছে । স্ট্যান্ড অ্যালোন দোকান ছাড়া ও নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রর দোকান ছাড়া বাকি সব দোকান বন্ধ রাখার কথা বলা হয়েছে । বুধবার থেকেই এই লকডাউন কার্যকর করা হবে বলেও জানা গিয়েছে ।

সব মিলিয়ে রাজ্যে উদ্বেগজনক ভাবে বাড়ছে করোনা আক্রান্তর সংখ্যা। কলকাতা হাওড়ার পরিস্থিতি রীতিমত উদ্বেগ জনক। আক্রান্ত আর মৃত্যুর হারে সব জেলাকেই টেক্কা দিচ্ছে এই জেলা। কলকাতা পুরসভার অন্তত আঠারোটি জায়গাকে কনটেনমেনট জোন বলে নতুন করে চিহ্নিত করা হয়েছে। হাওড়া ও কলকাতার কন্টেনমেন্ট জোনের সংখ্যা জেলার মোট আয়তনের অনেকটাকেই গ্রাস করেছে। সেই জায়গায় দাঁড়িয়ে ফের রাজ্যকে সাময়িক পূর্ন লকডাউনে ফিরতে হবে কি? প্রশ্নটা উঠছে।