সবংয়ে ছাত্র পরিষদের নামে রাজ্য সরকারের প্রচার! পুলিশে অভিযোগ দায়ের

622
সবংয়ে ছাত্র পরিষদের নামে রাজ্য সরকারের প্রচার! পুলিশে অভিযোগ দায়ের 1

নিজস্ব সংবাদদাতা: রাজ্য সরকারের হয়ে সমর্থন মূলক প্রচার চালানো হচ্ছে কংগ্রেসের ছাত্র সংগঠনের নাম করে! গোটা বিষয়টিকে পরিকল্পনা মাফিক ও বিভ্রান্তি তৈরির উদ্দেশ্যেই করা হচ্ছে বলে দাবি করে থানায় অভিযোগ দায়ের করলেন ছাত্র পরিষদ নেতৃত্ব। ঘটনাটি ঘটেছে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার সবং থানা এলাকায়।সবংয়ে ছাত্র পরিষদের নামে রাজ্য সরকারের প্রচার! পুলিশে অভিযোগ দায়ের 2

শনিবার বিষয়টি নিয়ে ওই থানাতেই লিখিত অভিযোগ জানালেন সবং এবং পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার ছাত্র পরিষদ নেতৃত্ব। পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা ছাত্র পরিষদের সভাপতি উজ্জ্বল মুখার্জী জানিয়েছেন, ‘পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা কমিটিকে সবং ছাত্রপরিষদ ইউনিটের পক্ষ থেকে জানানো হয় যে সবং থানা এলাকায় আমাদের সংগঠনের নামে মমতা ব্যানার্জী তথা রাজ্য সরকারের কাজকর্মের প্রশংসা করে ব্যানার দেওয়া হয়েছে। ঘটনার খবর পেয়েই আমরা ওই এলাকায় যাই এবং দেখতে পাই সবং কলেজ এবং সংলগ্ন তেমাথানি বাজার এলাকায় প্রায় ২৫টি ব্যানার টাঙানো হয়েছে।’

সবংয়ে ছাত্র পরিষদের নামে রাজ্য সরকারের প্রচার! পুলিশে অভিযোগ দায়ের 3

মুখার্জী জানিয়েছেন, ‘ এই ব্যানার গুলিতে কন্যাশ্রী ইত্যাদি প্রকল্প এবং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছবি লাগিয়ে নীচে বলা হয়েছে প্রচারে সবং কলেজ ছাত্র পরিষদ। যদিও এই ধরনের কোনোও ব্যানার আমরা লাগাইনি বা লাগানোর প্রশ্নই ওঠেনা।’

শনিবার বিষয়টি নিয়ে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা ছাত্র পরিষদ ও সবং কলেজ ছাত্র পরিষদের পক্ষ থেকে সবং থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা ছাত্র পরিষদের সভাপতি উজ্জ্বল মুখার্জ্জী ও পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য ছাত্র পরিষদের সম্পাদক অরিত্র দে এবং সবং ব্লক ছাত্র পরিষদের সভাপতি ননীগোপাল সামন্ত ও সবং ব্লক যুব কংগ্রেসের সভাপতি অভিজিৎ আদক প্রমুখরা।

কারা এই কাজ করতে পারে এই প্রশ্নের উত্তরে সবংয়ের ছাত্র পরিষদ নেতা ননীগোপাল সামন্ত বলেন, ‘যেহেতু আমরা দেখিনি তাই সরাসরি বলতে পারবনা কারা এটা করেছে তবে একটা জিনিস পরিষ্কার যে যাঁরা এই কাজ করেছিলেন তাঁরা এর আগে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রচার করতে গিয়ে এই ব্যানার গুলি ব্যবহার করেছেন। যে কারনে পুরানো ব্যানারে নতুন করে আমাদের সংগঠনের নাম লেখা হয়েছে। এতে অবশ্য একটা জিনিস পরিষ্কার যে, ওঁদের কথায় আর ছাত্রছাত্রীরা ভুলছেননা তাই এখন ওঁদের বিশ্বাসযোগ্যতা প্রমান করতে হচ্ছে আমাদের নাম ব্যবহার করে।’

ছাত্রপরিষদের নেতারা বলেছেন, ছাত্রছাত্রী তথা সাধারন মানুষের মধ্যে বিভ্রান্তি মূলক প্রচার করার উদ্দেশ্যে নিয়েই এই সব করা হচ্ছে। পুলিশকে তাঁরা আবেদন জানিয়েছেন দোষীদের খুঁজে বের করার জন্য।