করোনা বিধি শিকেয় তুলে মাতৃ আরাধনায় আমজনতা, জেলা জুড়ে অসচেতনতার ছবি

208
করোনা বিধি শিকেয় তুলে মাতৃ আরাধনায় আমজনতা, জেলা জুড়ে অসচেতনতার ছবি 1

নিজস্ব প্রতিনিধি, আলিপুরদুয়ার: করোনার চোখ রাঙানি উপেক্ষা করেই মাতৃ আরাধনায় আমজনতা; মাস্ক বিহীন মুখ, শিকেয় উঠেছে সামাজিক দূরত্ব বিধি, করোনা আবহেও অষ্টমী স্নানে মেতে উঠেছেন আলিপুরদুয়ারের ফালাকাতা ব্লকের বিভিন্ন এলাকার পুণ্যার্থীরা। ব্লকের জটেশ্বর এলাকার বীরকিটি থেকে কাজলী সর্বত্রই সকাল থেকে অষ্টমীর স্নানের ঘাটে পুণ্যার্থীদের ভিড় ছিল চোখে পড়ার মতন। আবার ফালাকাটা ব্লকের জটেশ্বরে সন্ন্যাসী তলায় বাসন্তী পুজোর পাশাপাশি অন্নপূর্ণা পুজোরও আয়োজন করা হয়।

করোনা বিধি শিকেয় তুলে মাতৃ আরাধনায় আমজনতা, জেলা জুড়ে অসচেতনতার ছবি 2

জানা গিয়েছে, মঙ্গলবার সকাল থেকে পুণ্যার্থীরা ভিড় জমাতে শুরু করেন জটেশ্বর সন্ন্যাসী তলা পূজা মন্ডপ প্রাঙ্গণে। সকাল থেকেই জিলিপি, মিষ্টি, বেলুন, দই, চিঁড়ে সহ নানা পসরা নিয়ে হাজির হয়েছেন দোকানদার। স্থানীয়রা জানিয়েছেন, দীর্ঘ ২৮ বছর ধরে এই এলাকার স্থানীয় বাসিন্দাদের উদ্যোগে এই বাসন্তী পুজো হয়ে আসছে। ষষ্ঠী থেকে শুরু করে দশমী পর্যন্ত ধুমধাম করে চলে মায়ের আরাধনা। নবমীর সন্ধ্যা বেলায় ঢাক-ঢোল সহকারে বাসন্তী মায়ের আরতি দেখতে ভিড় জমান বিভিন্ন প্রান্তের বহু মানুষ। আর এই বছর করোনার কারণেও তাদের এই উৎসবে ভাটা পড়েনি বিন্দুমাত্র।

করোনা বিধি শিকেয় তুলে মাতৃ আরাধনায় আমজনতা, জেলা জুড়ে অসচেতনতার ছবি 3

এদিকে আলিপুরদুয়ার জেলা জুড়ে করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের আঁচ এসে পড়েছে। চিন্তার ভাঁজ জেলা স্বাস্থ্য দপ্তরের কপালে। ইতিমধ্যেই জেলার একটি পৌরসভা ও ৬ টি ব্লকে ব্লক ভিত্তিক টাস্কফোর্সের বৈঠক হয়, বৈঠক থেকেই ব্লক ভিত্তিক কি ভাবে করোনা মোকাবিলা করা যায় তার ব্লুপ্রিন্ট তৈরি করা হয়। এই উদ্বেগের মধ্যেই আশার খবর করোনার টিকার অপ্রতুলতা কমে গেছে জেলায়। কারন শনিবার আলিপুরদুয়ার জেলায় নতুন ১৩,০০০ ভ্যাকসিন এসে পৌঁছেছে। এর মধ্যে কোভিশিল্ড ভ্যাকসিন এসেছে ১০,০০০ ও কোভ্যাকসিন এসেছে ৩০০০। রবিবার থেকে ফের ভ্যাকসিন দেওয়া শুরু করবে আলিপুরদুয়ার জেলা স্বাস্থ্য দফতর।

তবে জেলায় প্রতিদিনই বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। জানা গিয়েছে যে, আলিপুরদুয়ার জেলার কালচিনি ব্লকের ৯ টি জায়গাকে কন্টেনমেন্ট জোন করা হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে, ভারত-ভুটান সীমান্তে অবস্থিত এমজি রোড, মালঙ্গি গ্রাম পঞ্চায়েতের সাতালি চা বাগান, হাসিমারা এয়ারফোর্স, হ্যামিল্টনগঞ্জ, কালচিনি, রায়মাটাং, চুয়াপাড়া চা বাগান। এরই মাঝে কালচিনি ব্লকের বিডিও প্রশান্ত বর্মন নিয়মিত চা বাগান সংলগ্ন এলাকাগুলোতে গিয়ে,শ্রমিকদের বর্তমান করোনা পরিস্থিতি সম্পর্কে সচেতন করছেন। পিছিয়ে নেই স্বাস্থ্য অধিকেরাও, তারাও জনগনকে সচেতন করার সব রকম প্রয়াস চালিয়ে যাচ্ছে। যদিও চা বাগানের শ্রমিকরা বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে যথেষ্ট সচেতন।

এদিকে জেলায় করোনার বাড়বাড়ন্ত দেখে, করোনা পরিস্থিতি বিবেচনায় মঙ্গলবার জরুরি বৈঠক ডেকেছে আলিপুরদুয়ার পুর প্রশাসন। আলিপুরদুয়ার পুরসভার প্রশাসক বোর্ডের চেয়ারপার্সন মিহির দত্ত বলেন, “আমরা বৈঠক ডেকেছি। সকলের সাথে কথা বলে কি করা যায় তা ঠিক করব।”এদিকে আলিপুরদুয়ারে হাট বাজার প্রচুর ভিড় হলেও মাস্ক ব্যবহার করছেন না অনেকেই। যদিও এ বিষয়ে আলিপুরদুয়ার জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক ডাঃ গিরিশ চন্দ্র বেরা জানিয়েছেন, প্রতিদিনই মানুষের সচেতনতার জন্য মাইকিং চলছে।” এদিকে উত্তর-পূর্ব সীমান্ত রেলের ডিভিশনে স্টেশন গুলিতে কড়া ব্যবস্থা নিয়েছে রেল। মাস্ক বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

তবে এত সচেতনতামূলক ব্যবস্থা ও বিধি নিষেধ সত্ত্বেও মানুষ যেন এখনও উদাসীন। সেই উদাসীনতার ছবি এদিনে অষ্টমী স্নানের ঘাটেও দেখা গেল। নিজেরাই মাস্ক বিহীন মুখে, সামাজিক দূরত্ব বিধি ভেঙে করোনাকে আমন্ত্রন জানাচ্ছেন, অথচ মায়ের আরাধনা করছেন করোনা ভাইরাসকে পৃথিবী থেকে দূর করে দিতে, সত্যিই বিচিত্র আবদার বটে!

Previous articleকরোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে প্রথম মৃত্যু আইআইটি খড়গপুরে! করোনা চিহ্নিত হওয়ার ১২ ঘন্টার মধ্যেই মৃত্যু ৫২ বছরের ব্যক্তির
Next articleকরোনা আবহে মাধ্যমিক! কীভাবে হবে পরীক্ষা, প্রস্তুতি শুরু পর্ষদের