বিজেপিতে যোগ দিতেই সৌগত রায়ের মনে পড়ে গেল, মিঠুন চক্রবর্তী নকশাল ছিল

409
বিজেপিতে যোগ দিতেই সৌগত রায়ের মনে পড়ে গেল, মিঠুন চক্রবর্তী নকশাল ছিল 1

অশ্লেষা চৌধুরী: এক সময় মমতার প্রিয় মিঠুনদা যে আসলে একসময় নকশাল ছিল তা হঠাৎই মনে পড়ে গেছে তৃনমূল সাংসদ সৌগত রায়ের। আর মনে পড়েছে রবিবার, ৭ই মার্চ ব্রিগেডে প্রধানমন্ত্রীর সভায় মিঠুন চক্রবর্তী পদ্ম শিবিরে যোগ দেওয়ার পর! মিঠুন চক্রবর্তীর বিজেপিতে যোগদান নিয়ে এল তৃণমূলের তরফে প্রথম প্রতিক্রিয়া । তৃণমূলের মুখপাত্র তথা সাংসদ সৌগত রায় রবিবার বিকেলে মিঠুনকে ‘আসলে একজন নকশাল’ বলে মন্তব্য করেন। সঙ্গে তাঁর দাবী, মিঠুন বিগত দিনের স্টার।

সৌগত বাবু বলেন, ‘উনি চার বার দল বদলেছেন। উনি আসলে একজন নকশাল। তার পর উনি সিপিএমে যান। ২০১৪ সালে তৃণমূলের হয়ে ভোটে জেতার পর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ওঁকে রাজ্যসভায় পাঠালেন, তাঁকে রাজ্যসভার সাংসদ করা হয়েছিল।

বিজেপিতে যোগ দিতেই সৌগত রায়ের মনে পড়ে গেল, মিঠুন চক্রবর্তী নকশাল ছিল 2

মিঠুন চক্রবর্তীর রাজ্যসভা থেকে পদত্যাগের কারণ নিয়েও প্রশ্ন তোলেন সৌগত বাবু। বলেন, ‘উনি শারীরিক কারণ দেখিয়ে রাজ্যসভার সদস্যপদ ছাড়লেও বিজেপি তখন ওকে ইডির ভয় দেখিয়েছিল। আর ভয় দেখাতেই রোজভ্যালি থেকে যা টাকা নিয়েছিলেন, সব ফেরত দিয়ে সাধু হয়ে গেলেন। অনেকদিন পর আবার মিঠুন আত্মপ্রকাশ করে এখন উনি বিজেপিতেই যোগদান করলেন। ওনার কোনও বিশ্বাসযোগ্যতা নেই, সম্মান নেই, মানুষের মধ্যে কোনও প্রভাব নেই। মিঠুনকে ভরসা করা যায় না, ও আবার পালটি খাবে। ও বিশ্বাসঘাতক।’

প্রসঙ্গত, স্কটিশ চার্চ কলেজে পড়াকালীন গৌরাঙ্গ চক্রবর্তী ওরফে মিঠুন রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন, সেই সময় তিনি নকশাল পন্থী হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছিলেন। এরপর ভাইয়ের আকস্মিক মৃত্যু তাঁর জীবনের মোড় ঘুরিয়ে দেয়। আর নকশাল আন্দোলনে জড়িয়ে থাকার কারণে যেহেতু প্রাণ সংশয় তাঁর ছিলই, তার ওপর আবার পরিবারের দায়িত্ব। তাই নিজেকে গুছিয়ে নিয়ে মিঠুন পাড়ি জমান সুদূর মুম্বাইতে (তৎকালীন নাম বোম্বে)। তারপর সেদিনের এই ছেলেটা চলচ্চিত্র জগতে পা রেখে ডিস্কো ডান্সার রূপে ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করে।

এরপর বাম নেতা সুভাষ চক্রবর্তীর হাত ধরে ফের রাজনৈতিক আঙিনায় প্রবেশ; লাল শিবিরে তাঁর যোগদান। তবে সুভাষ চক্রবর্তীর মৃত্যুর পর থেকে বামেদের সাথে ক্রমশই তাঁর বাঁধন আলগা হতে শুরু করে। এরপর ২০১১ সালের পর থেকে তৃণমূল ঘনিষ্ঠতা, ঘাসফুল শিবিরের রাজ্য়সভার সাংসদ। তবে সারদা কাণ্ডের জেরে সেখান থেকেও দূরে চলে যান একই ভাবে। অবশেষে ৭ই মার্চ ব্রিগেডে মোদির জনসভায় পদ্ম শিবিরে যোগদান উত্তর কলকাতার গলি থেকে মুম্বাই মেগাস্টার মিঠুন চক্রবর্তীর।

রবিবাসরীয় দুপুরে ব্রিগেডে মোদির মঞ্চে পদ্ম শিবিরে যোগদান করেছেন মিঠুন চক্রবর্তী। শুক্রবার থেকেই তিনি বিজেপিতে যোগদান করবেন বলে আভাস মিলছিল। শনিবার বিষয়টি নিশ্চিত হয়। আর প্রধানমন্ত্রীর ব্রিগেড মঞ্চে পৌঁছানোর কয়েক মুহূর্ত আগেই দলীয় পতাকা হাতে তুলে পাকাপাকি ভাবে পদ্ম শিবিরে নাম লেখান মিঠুন। আর এরপরেই শাসক শিবির থেকে দলের প্রাক্তন সাংসদ মিঠুনকে নকশাল, বিশ্বাসঘাতকের মতন একের পর এক তকমা দিয়ে বাক্য বাণে বিদ্ধ করা হয়। যদিও এই যোগদান প্রসঙ্গে তৃণমূল সুপ্রিমোকে কোনও মন্তব্য করতে দেখা যায়নি, তবে সৌগত থেকে শুরু করে কুণাল ঘোষ এই কাজটি বেশ ভালোভাবেই সম্পন্ন করেছেন।