খড়গপুর ১০দিন পরে আক্রান্তহীন, বৃহস্পতিবার স্বস্তিতে শহর, দম নিলেন পুলিশ কর্মীরা

206
খড়গপুর ১০দিন পরে আক্রান্তহীন, বৃহস্পতিবার স্বস্তিতে শহর, দম নিলেন পুলিশ কর্মীরা 1

নিজস্ব সংবাদদাতা : প্রায় টানা ১০দিন পরে বৃহস্পতিবার কোনও নতুন আক্রান্তের খবর মেলেনি। করোনা ঝড়ের ম্যারাথন দৌড় যেন বিরতি নিয়েছে এদিন, যেদিন রাজ্যে করোনা সন্ক্রমনের নতুন আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে গত ২৪ ঘন্টায় ১৬৯০ জন। গতকালের চেয়ে ৯৯ জন বেশি।

গত ১০দিন করোনার ঝড়ো ব্যাটিংয়ে অবশ্য রান উঠেছিল সব চেয়ে বেশি সালুয়ায় প্রশিক্ষন রত জওয়ানরা আক্রান্ত হওয়ায়। বুধবার অবধি শেষ পাঁচ দিনে প্রশিক্ষনরত জওয়ান আর প্রশিক্ষক, অনুষঙ্গ মিলিয়ে আক্রান্ত হয়েছিলেন ৯৯ জন। বৃহস্পতিবার একেবারেই শুন্য আক্রান্ত খড়গপুরে।

খড়গপুর ১০দিন পরে আক্রান্তহীন, বৃহস্পতিবার স্বস্তিতে শহর, দম নিলেন পুলিশ কর্মীরা 2

খড়গপুর মহকুমা হাসপাতালের সুপার কৃষ্ণেন্দু মুখার্জী জানিয়েছেন, মঙ্গলবার সংগ্ৰহ করা ৭২ টি নমুনা থেকে ১৮ অমীমাংসিত এসেছিল বুধবার। বৃহস্পতিবার ফের দ্বিতীয় দফার পরীক্ষায় কোনও পজিটিভ রিপোর্ট আসেনি। অন্যদিকে বুধবার সংগ্ৰহ করা নমুনা থেকে ফের ১৮টি অমীমাংসিত ফলাফল এসেছে বৃহস্পতিবার। অর্থাৎ বৃহস্পতিবার কোনও পজেটিভ রিপোর্ট নেই খড়গপুরের জন্য। বৃহস্পতিবার যে একশর কাছাকাছি নমুনা সংগ্ৰহ করা হয়েছে তার ফল আসবে শুক্রবার সন্ধ্যার পর।”

বৃহস্পতিবার অবশ্য দিনটা ভাল গেছে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলারও। দাসপুর ১, দাসপুর ২, ঘাটাল ও দাঁতন ২ মিলিয়ে আক্রান্ত মাত্র ৪ জন। অথচ আগের দিন বুধবারও আক্রান্ত ছিল ৪২ জন। তার আগের দুদিন, ৫৫, ৬৯ ইত্যাদি নতুন আক্রান্তের সন্ধান মিলেছিল। তবে ঘটনা যাই হোকনা কেন বৃহস্পতিবার দিনটি খড়গপুর পুলিশের কাছে অনেকটাই স্বস্তি দায়ক। আক্রান্ত বের হলেই তাঁকে খুঁজে বের করা, কন্টেনমেন্ট জোনের প্রস্তুতি নেওয়া, আক্রান্তকে হাসপাতালে পাঠানোর দায়িত্ব নেওয়া, পরিবারের সদস্যদের কোয়ারেন্টাইন করা সবটাই পুলিশকে করতে হচ্ছে। শহরের আইনশৃংখলার পাশাপাশি এই কাজে রাতের ঘুম ছুটে যাচ্ছে পুলিশের। বৃহস্পতিবার রাতে সেই চাপ থেকে সাময়িক হলেও পুলিশের স্বস্তি।

যদিও নতুন করে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ার পর পুলিশ রাস্তাঘাটে ফের লকডাউনের মতই সক্রিয় হয়েছে। রাস্তাঘাটে মাস্ক না পরা ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে সক্রিয় অভিযান কিংবা বাজার গুলোতে সময়জ্ঞান বলবৎ করা, পাড়ার মধ্যে জটলা হটাতে পুলিশকে ছুটতে হচ্ছে এপ্রান্ত থেকে ওপ্রান্ত। তবুও তারমধ্যেই অনেকটা স্বস্তি বৃহস্পতিবার।