‘নো ভোট টু বিজেপি’ পোষ্টার ঘিরে উত্তাল হল কলেজ স্ট্রিট, উত্তেজনা কফিহাউসে

276
'নো ভোট টু বিজেপি' পোষ্টার ঘিরে উত্তাল হল কলেজ স্ট্রিট, উত্তেজনা কফিহাউসে 1

নিজস্ব সংবাদদাতা: বেশ কিছুদিন ধরে বিজেপি আরএসএস-এর বিরুদ্ধে বাংলা নামক একটি মঞ্চ ভোটের আগে গোটা বাংলা জুড়েই ‘নো ভোট টু বিজেপি’ নামক পোস্টারে প্রচার চালাচ্ছে।এবার কলেজ স্ট্রিট কফিহাউসে সেই প্রচার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করার ঘটনাকে ঘিরে উত্তাল হয়ে উঠল কলেজস্ট্রিট ও কফিহাউস চত্বর।

'নো ভোট টু বিজেপি' পোষ্টার ঘিরে উত্তাল হল কলেজ স্ট্রিট, উত্তেজনা কফিহাউসে 2

অভিযোগ উঠল, সোমবার বিকেলে মোদিপাড়া টি শার্ট গায়ে একদল যুবক এই নো ভোট টু বিজেপি পোস্টারে কালি লাগাতে থাকে। ছেঁড়াও হয় কিছু পোস্টার। পাশাপাশি মোদিপাড়া কর্মসূচির আহ্বায়করা জয় শ্রীরাম ধ্বনিও তুলতে থাকে।

'নো ভোট টু বিজেপি' পোষ্টার ঘিরে উত্তাল হল কলেজ স্ট্রিট, উত্তেজনা কফিহাউসে 3

তবে, বামমনস্ক ছাত্রযুবরাও হাত গুটিয়ে বসে থাকেনি । তাঁরাও পাল্টা স্লোগান দিতে থাকে।কফিহাউজের সিঁড়িতে মুখোমুখি এই স্লোগানযুদ্ধে পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। নেটদুনিয়ায় শোরগোল শুরু হয় এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে।

বিজেপির তরফে তেজিন্দর পাল সিংহ বাগ্গা কফি হাউজে এই গেরুয়া বাহিনীর এই আগ্রাসনের ভিডিও পোস্ট করেন।বামমনস্করাও সমাজমাধ্যমে ছবি ভিডিও ছড়িয়ে দেন। যদিও এখনও পর্যন্ত কোনও পক্ষই পুলিশে কোনও অভিযোগ জানায়নি বলে খবর।

সেখানকার প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন,সোমবার বিকেলে মোদিপাড়া লেখা টিশার্ট পরে জনা তিরিশেক যুবক কফিহাউজে ঢোকেন। কিছুক্ষণ পর তাঁরা বেরিয়েও যান।দেখা যায় দলটি সিঁড়িতে ওই নো ভোট টু বিজেপি পোস্টারে মার্কারের কালি লাগাচ্ছেন। দেখতে পেয়েই প্রতিবাদ শুরু করেন বাম ছাত্ররা। দুপক্ষের স্লোগানে উত্তেজনা চরমে পৌঁছয়। বেশ কয়েকটি পোস্টার ছেঁড়া হয়।

যদিও বিজেপির তরফে পালটা দাবি করা হয়েছে, ওই যুবকরা আসলে পোস্টার লাগানোর জন্য সেখানে গিয়েছিলেন। কিন্তু তাঁদের বাধা দেওয়া হয়। তাঁরাও প্রশ্ন তোলেন, বিজেপি বিরোধী পোস্টার সেখানে লাগানো হয়ে থাকলে, তাঁদের কেন বাধা দেওয়া হবে? আর তার প্রতিবাদস্বরূপই তাঁরা স্লোগান তোলেন। ইতিমধ্যেই প্রকাশ্যে এসেছে কফি হাউসের সেই ঘটনার ভিডিও। যেখানে দেখা যাচ্ছে, বিজেপি কর্মী-সমর্থকদের গেরুয়া টি-শার্টে মোদির ছবি। এবং তাঁরা ‘জয় জয় ভারতমাতা’, ‘জয় শ্রীরাম’ স্লোগান তুলে সিঁড়ি দিয়ে নেমে আসছেন। পালটা বিজেপি-বিরোধী স্লোগানও শোনা যায়। সবমিলিয়ে বেশ খানিকক্ষণের জন্য পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়।

এই ঘটনা নিয়ে বিজেপির মুখপাত্র শমীক ভট্টাচার্য জানিয়েছেন,”কফি হাউসের মতো এমন ঐতিহ্যবাহী স্থানে রাজনীতি ঢোকাটা সত্যিই কাম্য নয়।যেভাবে পোস্টারে ঢেকে ফেলা হয়েছে, তা কফি হাউসের সংস্কৃতির সঙ্গে যায় না। কিন্তু গেরুয়া টি-শার্ট পরে কয়েকজন ঢুকলেই যে তাঁদের বাধা দিতে হবে, সেটাও মেনে নেওয়া যায় না।”

শহর কলকাতার সংস্কৃতিচর্চার প্রাণভোমরা কফিহাউজে এ হেন তাণ্ডবে ক্ষুব্ধ শিল্প-সংস্কৃতিজগতের মানুষজন। সূত্রের খবর,আজ মঙ্গলবার কফিহাউজে দুপুর দুটোয় এর বিরুদ্ধে একটি জমায়েতের ডাক দেওয়া হয়েছে। কোনও নির্দিষ্ট দল বা মঞ্চ নয়, সমাজমাধ্যমে এই জমায়েতটিতে আহ্বান করা হয়েছে যে কোনও পোস্টার বা প্ল্যাকার্ড নিয়ে কফিহাউজ চত্বরে জমা হতে।

Previous articleকর্মীদের ক্ষোভের মুখে বদল হচ্ছে বিজেপির প্রার্থী তালিকা, বাদ পড়তে পারেন তৃণমূল থেকে আসা একগুচ্ছ প্রার্থী! শাহের তলব পেয়েই দিল্লীর পথে মুকুল-দিলীপরা
Next articleনির্বাচনের মুখে চাঞ্চল্য শিলিগুড়িতে,বিমানবন্দরে আটক দুই চিনা নাগরিক