নয়া বনাম পুরানো বিজেপির লড়াইয়ে ধুন্ধুমার বর্ধমান ! সার দিয়ে পুড়ল গাড়ি, ঘটনায় পিকের ইন্ধন, অভিযোগ গেরুয়া শিবিরের

378
নয়া বনাম পুরানো বিজেপির লড়াইয়ে ধুন্ধুমার বর্ধমান ! সার দিয়ে পুড়ল গাড়ি, ঘটনায় পিকের ইন্ধন, অভিযোগ গেরুয়া শিবিরের 1

অশ্লেষা চৌধুরী: বর্ধমান শহরে প্রকাশ্যে পদ্ম শিবিরের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব। বিজেপির জেলা কার্যালয় দফতরে ভাঙচুর। অভিযোগ বিজেপিরই একাংশের বিরুদ্ধে। দলে গুরুত্ব না পাওয়ায় ভাঙচুর, দাবী বিক্ষোভকারীদের। অভিযোগ পুর্ব বর্ধমানের জেলা সভাপতির বিরুদ্ধে । জেলার নেতাদের বিরুদ্ধেও গুরুত্ব না দেওয়ার অভিযোগ। ঘটনায় তৃণমূলের মদত ও পিকের টাকা রয়েছে, দাবী বিজেপির।নয়া বনাম পুরানো বিজেপির লড়াইয়ে ধুন্ধুমার বর্ধমান ! সার দিয়ে পুড়ল গাড়ি, ঘটনায় পিকের ইন্ধন, অভিযোগ গেরুয়া শিবিরের 2

বর্ধমানের ঘোড়দৌড় চটির বিজেপির দলীয় কার্যালয়ে হামলা ও ভাঙচুর চালানো হয় বৃহস্পতিবার। দলের বিক্ষুদ্ধ গোষ্ঠীর লোকজন এই হামলা চালায় বলে জানা গিয়েছে। মারধর করা হয় জেলা সভাপতি সন্দীপ নন্দীকেও। জানা যায় এদিন পূর্ব বর্ধমান জেলার নানা এলাকা থেকে বিক্ষুব্ধ বিজেপি কর্মীরা জেলা কার্যালয়ে আসেন। তারা জমায়েত হয়ে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন। তাদের ক্ষোভ জেলা সভাপতি সন্দীপ নন্দী সহ বেশ কিছু কার্যকর্তার বিরুদ্ধে। এইসময় হঠাৎ দুই গোষ্ঠীর মধ্যে বচসা বাধে। শুরু হয়ে যায় ধুন্ধমার কান্ড। বিজেপি অফিসে ভাঙ্গচুর শুরু হয়।

নয়া বনাম পুরানো বিজেপির লড়াইয়ে ধুন্ধুমার বর্ধমান ! সার দিয়ে পুড়ল গাড়ি, ঘটনায় পিকের ইন্ধন, অভিযোগ গেরুয়া শিবিরের 3

অন্যদিকে অফিসের ছাদ থেকে ইট পাথর ভাঙ্গা আসবাবের টুকরো উড়ে আসতে থাকে। বিক্ষুব্ধদের অভিযোগ, তারা পুরনো কর্মী। রক্ত দিয়েছেন। মার খেয়েছেন। কিন্তু যাদের সাথে লড়াই করে এসেছেন তাদের দলে নেওয়া হচ্ছে। তাদের কথা শোনা হচ্ছে না। দলে স্বেচ্ছাচারিতা চলছে। তারা বারবার সাংসদ থেকে দলীয় নেতৃত্ব সবাইকে জানিয়েছেন, কোনও ফল হয়নি। তাদের আরও অভিযোগ, দলের অফিসিয়াল গ্রুপের লোকেরা তাদের প্রথম আক্রমণ করে। এরপরেই শুরু হয়ে যায় ধুন্দুমার কাণ্ড।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে আসে পুলিশ। পুলিশ লাঠিচার্জ করে অবস্থা নিয়ন্ত্রণে আনতে গেলে দু পক্ষ থেকেই পুলিশের উপর ইঁটবৃষ্টি করা হয় বলে অভিযোগ। এছাড়াও বেশ কয়েকটি বাইক ও একটি চারচাকা গাড়ি ভাঙচুর করা হয়। পণ্যবাহী গাড়িতেও আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়।

ঘটনায় বিজেপির পক্ষ থেকে অভিযোগ, বিক্ষোভকারীরা প্ল্যান করে এইসব করেছে, বিজেপির এটা সংস্কৃতি নয়। এই ঘটনায় শাসকদলের মদত ও পিকের টাকা রয়েছে। যারা মোদী জি ও নাড্ডা জির হাত গুড়িয়ে দাও বলছে, তারা কি করে বিজেপির লোক হতে পারে! একই দাবী করেছেন বঙ্গ বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ।

পূর্ব বর্ধমান জেলায় বিজেপি ততটা সংগঠিত ছিলনা। কিন্তু লোকসভা ভোট থেকে এখানে বিজেপির সংগঠন দৃঢ় হতে থাকে। লোকসভায় বর্ধমান দুর্গাপুর কেন্দ্রে জয়ী হয় দল। কয়েকদিন আগেই স্বয়ং জে পি নাড্ডার রোড শোয়ে ঢল নামে মানুষের । তারপরও আজকের এই ঘটনায় হতবাক সকলেই।