বন্ধ হয়ে গেল কলকাতার অন্যতম পাঁচতারা হোটেল ‘সুইসোটেল’, কাজ হারালেন ২৫০ জন কর্মী

174
Advertisement

ওয়েব ডেস্ক: বন্ধ হয়ে গেল কলকাতার অন্যতম পাঁচতারা হোটেল সুইসোটেল। মঙ্গলবার দমদম বিমানবন্দরের সব থেকে কাছে অবস্থিত পাঁচতারা হোটেলটি সাময়িকভাবে বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিল হোটেল কর্তৃপক্ষ। একেই করোনা সংক্রমণের জেরে এই মূহুর্তে আন্তর্জাতিক বিমান বন্ধ, অন্যদিকে অন্তর্দেশীয় বিমান এতদিন যাও ওঠানামা করছিল তাতে আদতে হোটেলের কোনো লাভই হচ্ছিল না। তার ওপর ইতিমধ্যেই হোটেলের নির্মাতা সংস্থা অম্বুজা নেওটিয়ার সঙ্গে পরিবন্ধ হয়ে গেল কলকাতার অন্যতম পাঁচতারা হোটেল ‘সুইসোটেল’, কাজ হারালেন ২৫০ জন কর্মীচালক সংস্থা অ্যাকরের চুক্তির মেয়াদ ফুরিয়েছে সবমিলিয়ে এই পরিস্থিতিতে দুপক্ষের তরফেই হোটেল সুইসোটেল সাময়িক বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তবে এই হোটেলের সাথে জড়িয়ে রয়েছে কয়েকশো জন কর্মীর রুজি-রোজগার। তাদের কারো বাড়ি নদীয়া তো কেউ থাকেন শান্তিপুর। কাজের তাগিদে পরিবার ছেড়ে তারা এতদিন এখানে থেকে কাজ করতেন। কিন্তু করোনা আবহে আচমকা কর্তৃপক্ষের তরফে হোটেলটি বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়ায় স্বাভাবিকভাবেই কাজ হারানোর আশঙ্কায় দিন কাটচ্ছেন প্রায় ২৫০ জন কর্মী। পরিস্থিতি এমনই যে কাজ হারালে ফের কিভাবে এই পরিস্থিতির মধ্যে কাজ খুঁজে পাবেন তা ভেবেই মাথায় হাত অনেকের।

Advertisement

নিউ টাউনে সিটি সেন্টার ২-এর পাশে পাঁচতারা হোটেল সুইসোটেলের নির্মাতা অম্বুজা –নেওটিয়া গোষ্ঠী। হোটেলটি পরিচালনা করতো ফরাসি গোষ্ঠী ‘অ্যাকর’। প্রায় ১০ বছর ধরে দুই সংস্থা চুক্তি ভিত্তিতে চালাচ্ছিল হোটেলটি। কিন্তু বর্তমানে করোনা সংক্রমণ দিন দিন যেভাবে বাড়ছে তাতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে এমনিতেই হোটেলের রক্ষণাবেক্ষণের জন্য বাড়তি খরচ লেগেই রয়েছে৷ তারওপর এই পরিস্থিতিতে হোটেলে লোক সংখ্যা একেবারেই নেই। ফলে লাভের বদলে ক্রমশ লোকসানের মুখ দেখছেন হোটেল কর্তৃপক্ষ। এর জেরে বেশ কিছুদিন যাবতই হোটেলটি সাময়িক বন্ধ রাখার কথা ভাবা হচ্ছিল। কিন্তু যেহেতু হোটেলের সাথে প্রায় ২৫০ জন কর্মীর রোজগার জড়িয়ে রয়েছে তাই কোনোও পদক্ষেপ নিতে পারছিলেন না। এর মধ্যেই গত সোমবার অ্যাকরের সঙ্গে অম্বুজা-নেওটিয়া গোষ্ঠীর চুক্তির মেয়াদ শেষ হওয়ায় মালিক ও কর্মচারীদের বৈঠকের মাধ্যমে হোটেলটি সাময়িক বন্ধের সিদ্ধান্ত নেন হোটেল কর্তৃপক্ষ।

Advertisement
Advertisement

এবিষয়ে অম্বুজা-নেওটিয়া গোষ্ঠীর কর্ণধার হর্ষ নেওটিয়া জানিয়েছেন, “গত ৩০ জুন অ্যাকরের সঙ্গে আমাদের চুক্তির মেয়াদ শেষ হয়েছে। তাই হোটেলটি সাময়িক ভাবে বন্ধ রাখা হল। আমরা অ্যাকরের সঙ্গে চুক্তি পুনর্নবীকরণ করব না কি নতুন কোনও গোষ্ঠীর সঙ্গে চুক্তি হবে তা ভবিষ্যতে সিদ্ধান্ত হবে। সুইসোটেলের ৮০ শতাংশ অতিথিই বিমানে করে কলকাতা আসতেন। এদের মধ্যে অধিকাংশই বিদেশি। আন্তর্জাতিক উড়ান বন্ধ থাকায় হোটেল চালানো মুশকিল হয়ে পড়েছিল। হোটেল বন্ধ হওয়ায় কাজ হারালেন ২৫০ জন কর্মী। তাদের মাসিক কিছু ভাতার বিনিময়ে আপাতত ছুটিতে পাঠানো হয়েছে। “