করোনার ভয়ে বাসের টিকিট নিতে অস্বীকার যাত্রীদের, সেই টাকা ঢুকছে কন্ডাকটরদের পকেটে, চিন্তায় বাসমালিকরা

129

ওয়েব ডেস্ক : করোনা সংক্রমণের জেরে বদলে গিয়েছে একাধিক নিয়ম। আগে এক একটি বাসে প্রায় শতাধিক যাত্রী নেওয়ার সুবিধা থাকলেও বর্তমানে সংক্রমণ ছড়ানোর আশঙ্কায় যত সিট তত যাত্রীর সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। পাশাপাশি রাজ্য সরকারের তরফে বাস মালিকদের যথেচ্ছ ভাড়া বাড়ানোর সিদ্ধান্ততেও লাগাম পড়ানো হয়েছে। এর জেরে এতদিন পর্যন্ত রাজ্য সরকার-বাস মালিকদের সংঘাত ছিল তুঙ্গে। গত কয়েকদিন আগেই সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বাস, মিনিবাসের কর মকুব করেছে পশ্চিমবঙ্গ সরকার। ছাড় দেওয়া হয়েছে পারমিট ফি–তেও। এর জেরে বেজায় স্বস্তি পেয়েছেন বাসমালিকরা। কিন্তু তবুও একটা সমস্যা কিছুতেই পিছু ছাড়ছে না বাসমালিকদের। বাসে যাত্রী হচ্ছে, কিন্তু সেই তুলনায় টিকিট বিক্রি হচ্ছে কম। আর তার জেরে দিনের পর দিন আয় কমছে বাসমালিকের। এর পিছনেও রয়েছে করোনা সংক্রমণ ছড়ানোর আতঙ্ক।

আরও পড়ুন -  করোনা আক্রান্ত হলেন মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী, উদ্বিগ্ন 'দাদার অনুগামী'রা

লকডাউন পর্বে দীর্ঘদিন পরিবহন পরিষেবা বন্ধ থাকার পর আনলক পর্বে বেশিরভাগ কর্মস্থলই চালু হওয়ায় বাস পরিষেবাও খুলে গিয়েছে। একই সাথে আগের থেকে বাসে যাত্রীদের সংখ্যাও বেড়েছে। কিন্তু সারাদিন বহু যাত্রীর সংস্পর্শে আসেন বাস কন্ডাক্টাররা। চলে টিকিট দেওয়া–নেওয়াও। আর সেখানেই থেকে যাচ্ছে করোনা সংক্রমণের ভয়। এর জেরে অধিকাংশ সাধারণ যাত্রী বাসভাড়া মিটিয়ে দিলেও টিকিট কিংবা ফেরত পাওয়া খুচরো পয়সাও নিতে চাইছেন না।

এদিকে টিকিট না নেওয়ায় অবিক্রিত সেই টিকিট থেকে যাচ্ছে বাস কন্ডাক্টারের কাছেই। আর যাত্রীদের দেওয়া টাকা চলে যাচ্ছে বাসচালক ও কন্ডাক্টারের পকেটে। এর জেরে আখেরে ক্ষতির মুখে পড়তে হচ্ছে বাসমালিকদের। টাকার মুখ দেখতে পাচ্ছেন না বাসমালিকরা। যদিও এই খবর ইতিমধ্যেই বাসমালিকদের কানে পৌঁছেছে। তাঁদের আক্ষেপ, যাত্রীসুরক্ষার কথা ভেবে এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে প্রতিদিনের টিকিট প্রতিদিন স্যানিটাইজ করে কন্ডাক্টরদের দেওয়া হয়। তবুও সংক্রমণের আতঙ্কে এই দুরবস্থা।

আরও পড়ুন -  পূর্ব মেদিনীপুরে কী জলদস্যুদের অভিযান? গেঁওখালিতে সন্দেহভাজন ট্রলার,আটক ৬

তাই এবার আর উপায় না দেখে টিকিট স্যানিটাইজ করার বিষয়টি যাত্রীদের অবগত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাসমালিকদের সংগঠন। এর জেরে বিভিন্ন রুটের বেসরকারি বাসে লাগানো হয়েছে এই সংক্রান্ত একাধিক পোস্টার। তাতে বাসমালিকরা সাধারণ যাত্রীদের উদ্দেশ্যে আবেদন জানিয়েছেন, “দয়া করে সঠিক ভাড়া দিয়ে স্যানিটাইজ করা টিকিট সংগ্রহ করুন।”‌ তবে বাস মালিকদের আবেদনে আদেও বাসযাত্রীরা সাড়া দেবেন কিনা এখন সেটাই এটাই বিষয়।

করোনার ভয়ে বাসের টিকিট নিতে অস্বীকার যাত্রীদের, সেই টাকা ঢুকছে কন্ডাকটরদের পকেটে, চিন্তায় বাসমালিকরা 1