রাজনৈতিক সংঘর্ষ অব্যাহত বীরভূমে! উত্তপ্ত নানুর, লাভপুর

24
রাজনৈতিক সংঘর্ষ অব্যাহত বীরভূমে! উত্তপ্ত নানুর, লাভপুর 1

বিশ্বজিৎ দাস: ভোটের শুরুতেই বীরভূমের নানা জায়গায় রাজনৈতিক অশান্তি। কোথাও অপহরণ, কোথাও গাড়ি ভাঙচুর, আবার কোথাও সংঘর্ষ। এই সবের মাঝে এদিন আরও নজরদারি বেড়েছে অনুব্রত মণ্ডলের উপর।

রাজনৈতিক সংঘর্ষ অব্যাহত বীরভূমে! উত্তপ্ত নানুর, লাভপুর 2

নানুরের সন্ত্রস্ত এলাকা বন্দর গ্রামে দীর্ঘক্ষণ পর ভোটগ্রহণ শুরু। ভোটারদের বাধাদানের অভিযোগ ঘিরে তৃণমূল-বিজেপির হাতাহাতি চরম আকার নেয়। শেষপর্যন্ত কেন্দ্রীয় বাহিনীর হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে। পাশাপাশি বীরভূমের নানুর বিধানসভার সিংগী গ্রামে বিজেপি কর্মীদের গাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগ ওঠে, ব্যাপক উত্তেজনা ছড়ায় এলাকায়। অভিযোগের তির তৃণমূলের বিরুদ্ধে ।

রাজনৈতিক সংঘর্ষ অব্যাহত বীরভূমে! উত্তপ্ত নানুর, লাভপুর 3

এদিকে লাভপুরে খোঁজ নেই বিজেপি এজেন্টের। বুথে যাওয়ার উদ্দেশেই বাড়ি থেকে বেরিয়েছিলেন, কিন্তু এরপর থেকে আর মিলছে না খোঁজ। ওমরপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের ঝিনাইপুর গ্রামে ১৩ নম্বর বুথের বিজেপির পোলিং এজেন্ট গৌরাঙ্গ মন্ডলের খোঁজ মিলছে না ভোটের দিন সকাল থেকেই। সম্ভাব্য সমস্ত জায়গায় খোঁজ করা হয়। বিজেপির তরফ থেকে গৌরঙ্গকে অপহরণের অভিযোগ তোলা হয়েছে। বিজেপির অভিযোগ. বুথে যাওয়ার পথেই গৌরাঙ্গকে তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা তাঁকে অপহরণ করেছে। পর্যবেক্ষককে অভিযোগ জানানো হয়েছে বলে দাবী বিজেপির। যদিও অভিযোগ অস্বীকার করেছে তৃণমূল।

শুধু তাই নয়, অষ্টম দফা ভোট গ্রহণের আগের রাতেই উত্তপ্ত হয়ে ওঠে বীরভূমের লাভপুর বিধানসভা কেন্দ্রের হাতিয়া হাজরা পাড়া। সেখানে ভোটারদের ভয় দেখানোর অভিযোগ ওঠে। হাতিয়া হাজরাপাড়ার বাসিন্দা শান্তনা হাজরার অভিযোগ, তাঁরা বিজেপির সমর্থক। রাতে তাঁদের বাড়ি ভাঙচুর করেছে পুলিশ।

এছাড়া বীরভূমের বোলপুর শহরের ১৪ নম্বর ওয়ার্ডেও উত্তেজনা ছড়ায়। নির্বাচন শুরুর আগেই বিজেপির বুথ ক্যাম্প ভাঙচুর করার অভিযোগ ওঠে তৃণমূলের বিরুদ্ধে। এলাকায় উত্তেজনা রয়েছে। সঙ্গে বিজেপির পতাকা ও ফেস্টুনও ছিঁড়ে ফেলা হয় বলে অভিযোগ উঠেছে।

পাশাপাশি, বোলপুরের অনুব্রতের এলাকায় বিজেপি কর্মীদের বাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগ উঠেছে পুলিশের বিরুদ্ধে। পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা নির্বাচনের শেষ দফার নির্বাচনে অতি স্পর্শকাতর এলাকা বীরভূম। সেই এলাকায় নির্বাচন কমিশন শুরু থেকেই কড়া নজর রাখছে। এরই মধ্যে বিজেপি কর্মীদের বাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগ উঠল খোদ পুলিশের বিরুদ্ধে। বোমা খোঁজার অছিলায় বিজেপি কর্মীদের বাড়ি ঢুকে ভাঙচুর চালানো হয় বলে অভিযোগ।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার রাজ্য অষ্টম তথা শেষ দফার ভোট। উত্তর কলকাতা-সহ মোট ৪ জেলার ৩৫ টি কেন্দ্রে চলছে ভোটগ্রহণ পর্ব। মালদহ, মুর্শিদাবাদ, বীরভূমের বেশ কয়েকজন হেভিওয়েটের ভাগ্য পরীক্ষা এদিন। এছাড়া পুনঃর্নির্বাচন কোচবিহারের শীতলকুচির ১২৬ নং বুথেও। নিরাপত্তায় মোতায়েন মোট ৭৫৩ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী রয়েছে। বৃহস্পতিবার বীরভূমে শেষ দফার ভোটের সকাল থেকেই বিক্ষিপ্ত অশান্তি।

Previous articleভোট ফুরিয়েছে কাজ নয়! খড়গপুরের বাজারে মাস্ক বিলি করে গেলেন হিরন, মাস্ক দিলেন পুলিশকেও
Next articleনির্বাচনের ১২ ঘন্টা আগে সিপিএম কর্মীকে গাড়ি চাপা দিয়ে খুনের অভিযোগ তৃণমুল প্রার্থীর বিরুদ্ধে! আহত আরও ২, উত্তপ্ত ডোমকল