রবীন্দ্রনাথকে ‘বহিরাগত’ মন্তব্যের জের, উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিতে গণ-ইমেল শিক্ষামন্ত্রীকে

96

ওয়েব ডেস্কঃ গত ২ সপ্তাহ আগে বিশ্বভারতীর পৌষমেলা চত্বরে পাঁচিল দেওয়াকে কেন্দ্র করে রণক্ষেত্রের পরিবেশ তৈরি হয়েছিল গোটা শান্তিনিকেতন। এই ঘটনার পর থেকেই ফুঁসছে বোলপুরবাসী। এই ঘটনার মাঝেই দিন কয়েক আগে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে নিয়ে ফের বেফাঁস মন্তব্য করে বসলেন বিশ্বভারতীর উপাচার্য। রবীন্দ্রনাথকে ‘বহিরাগত’ বলার জন্য সপ্তাহখানেক ধরেই উপাচার্যের বিরুদ্ধে তুমুল বিতর্ক চলছে। এবার সেই কুরুচিকর মন্তব্যের জন্য বিশ্বভারতীর উপাচার্য বিদ্যুৎ চক্রবর্তীকে অপসারণের দাবি তুলল জাতীয় বাংলা সম্মেলন। এই বিষয়ে ইতিমধ্যেই এই সংগঠনের তরফে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যাকে গণ ইমেলও পাঠানো হয়েছে।

আরও পড়ুন -  বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রীকে শ্লীলতাহানির অভিযোগ, অধ্যাপককে ক্যাম্পাসে ঢুকতে নিষেধ

প্রসঙ্গত, চলতি মাসের ১৭ অগস্ট পৌষমেলার মাঠে পাঁচিল দেওয়াকে কেন্দ্র করে বিশ্বভারতী চত্বরে রণক্ষেত্রের চেহারা নিয়েছিল। জেসিবি দিয়ে রীতিমতো ভাঙচুর চালানো হয়েছিল মাঠের পাঁচিল। সেই সময় উপাচার্যের তরফে কোনো প্রতিক্রিয়া না পাওয়া গেলেও ঘটনার সপ্তাহখানেকের মাথায় উপাচার্যের তরফে সাত পাতার বিবৃতি দেওয়া হয়েছিল। বিবৃতিতে উপাচার্য বিদ্যুৎ চক্রবর্তীর তরফে একাধিক অভিযোগ করা হয়েছিল, তিনি বলেন রাজনৈতিক মদতে বিশ্বভারতীকে কলুসিত করতে পরিকল্পনা করেই তাণ্ডব চালানো হয়েছে। এর পিছনে রাজনৈতিক মদত রয়েছে বলেই তিনি অভিযোগ করেন। সাত পাতার ওই বিবৃতিতে রবীন্দ্রনাথের প্রসঙ্গও টেনে আনেন তিনি। এবিষয়ে উপাচার্য বলেছেন, “পাঠকদের মনে করিয়ে দিয়ে শুরু করি যে গুরুদেব রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর নিজে বহিরাগত ছিলেন। তিনি যদি ওই অঞ্চল পছন্দ না করতেন তবে বিশ্বভারতী বিকশিত হত না।”

উপাচার্যের সেই ‘বহিরাগত’ মন্তব্যই বিশ্বভারতীর অশান্তির আগুনে ঘি ঢালে৷ তার এই মন্তব্য নিয়ে রীতিমতো বিতর্ক শুরু হয়। বিশ্বভারতী উপাচার্যের মুখে এমন শব্দের বিরুদ্ধে রীতিমতো ক্ষোভ উগরে দেন বিশ্বভারতীর বর্তমান ও প্রাক্তন পড়ুয়াদের একাংশ। তবে শুধুমাত্র পড়ুয়ারাই নন, এই মন্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়েছে জাতীয় বাংলা সম্মেলনও। রবীন্দ্রনাথের সম্পর্কে অগণতান্ত্রিক ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্যের জন্য উপাচার্যের বিরুদ্ধে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়ার আবেদন জানিয়ে ইতিমধ্যেই মুখ্যমন্ত্রী ও শিক্ষামন্ত্রীকে গণ ইমেল পাঠানো হচ্ছে। একইসঙ্গে তাঁর পদত্যাগেরও দাবি তুলেছেন বিশ্বভারতীর পড়ুয়া সহ একাধিক সংগঠন। এবিষয়ে জাতীয় বাংলা সম্মেলনের সম্পাদক সিদ্ধব্রত দাস জানিয়েছেন, “রবীন্দ্রনাথকে নিয়ে কুরুচিরকর মন্তব্যের জন্য তার পদত্যাগের দাবি জানিয়ে শিক্ষামন্ত্রীকে গণ-ইমেল পাঠানো হচ্ছে। পাশাপাশি, আগামিদিনে শান্তিনিকেতনে গিয়ে আমরা বৃহত্তর আন্দোলনে নামতে চলেছি।”

রবীন্দ্রনাথকে 'বহিরাগত' মন্তব্যের জের, উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিতে গণ-ইমেল শিক্ষামন্ত্রীকে 1