হেমতাবাদের ছায়া গোঘাটে! উদ্ধার বিজেপি কর্মীর ঝুলন্ত দেহ, শাসকদলের বিরুদ্ধে অভিযোগের তির পরিবারের

147

ওয়েব ডেস্ক : হেমতাবাদকাণ্ডের পর মাস দুয়েক কাটতে না কাটতেই ফের এক বিজেপিকর্মীর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার গোঘাটের রেল স্টেশন চত্বরে। জানা গিয়েছে, মৃত ওই ব্যক্তির নাম গণেশ রায়। তিনি এলাকায় বরাবরই বিজেপির সক্রিয় কর্মী হিসেবে পরিচিত ছিলেন। রবিবার সাত সকালে স্থানীয় বাসিন্দারা বিজেপি কর্মীর বাড়ি থেকে প্রায় দু’কিলোমিটার দূরে একটি গাছে গনেশ রায়ের ঝুলন্ত দেহ দেখিতে পান। এরপর তাঁর দেহটি উদ্ধার করা হয়। এদিকে বিজেপি কর্মীর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধারকে কেন্দ্র করে স্বাভাবিকভাবেই এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়ায়। ঘটনার পর পরই পুলিশে খবর দেওয়া হলে, ঘটনাস্থলে পুলিশ পৌঁছে মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে।

আরও পড়ুন -  লাইনটা অন করে দিল ভগৎ সিং শত বার্ষিকী কমিটি! চোখের জল মুছে বললেন পুজা, প্রিয়াঙ্কারা

জানা গিয়েছে, শনিবার বিকেলে বাড়ি থেকে সামান্য দূরে যাওয়ার নাম করে বেরিয়েছিলেন গণেশ রায়। কিন্তু বিকেল গড়িয়ে রাত হয়ে গেলেও গণেশবাবু বাড়ি ফেরেননি। এরপর সারা রাত অনেক খোঁজাখুঁজি করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি। এরপর রবিবার ভোর বেলায় স্থানীয় কয়েকজন বাসিন্দার নজরে পড়েন তার ঝুলন্ত দেহ৷ বাড়ি থেকে প্রায় দু’কিলোমিটার দূরে গোঘাট রেল স্টেশন সংলগ্ন একটি গাছে তাঁর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার করা হয়। পরিবারের অভিযোগ, এর আগে তৃণমূলের তরফে একাধিকবার বিজেপি কর্মী গণেশ রায়কে হুমকি দেওয়া হয়েছে। তাদের দাবি, শাসকদলের তরফে পরিকল্পনা করেই গণেশ রায়কে খুন করা হয়েছে। তাদের দাবি স্থানীয় তৃণমূলের লোকজনই গণেশবাবুকে খুন করেছেন। এ কাজ করেছে বলে অভিযোগ। ছেলের দাবি, “বাবাকে শাসক দলের লোকেরাই মেরে ঝুলিয়ে দিয়েছে।” যদিও এই অভিযোগ একেরবারেই উড়িয়ে দিয়েছে স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্ব। তাদের পাল্টা দাবি, লাশের রাজনীতি করছে বিজেপি।

এ ঘটনায় বিজেপির আরামবাগ জেলা সাংগঠনিক সভাপতি বিমান ঘোষের অভিযোগ, “এর আগে গণেশ রায়কে শাসকদলের তরফে বহুবার হুমকি দেওয়া হয়েছিল। আজ তা প্রমাণিত হলো। তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা এর পিছনে রয়েছে। পুলিশের কাছে অভিযুক্তদের নামের তালিকা পাঠানো হয়েছে।” তবে বিজেপির এই অভিযোগ একেবারের অস্বীকার করেছে শাসকদল৷ ঘটনায় অভিযুক্তদের শাস্তির দাবিতে ইতিমধ্যেই আরামবাগে অবস্থান বিক্ষোভ শুরু করেছে বিজেপি। এবিষয়ে গোঘাটে বিধায়ক মানস মজুমদার বলেন, “বিজেপি লাশের রাজনীতি করছে। গণেশ রায় একজন দিনমজুর এবং বামপন্থী বলে জানি। তাঁর মৃত্যু সত্যিই দুর্ভাগ্যজনক। কিন্তু এমন অনেক ঘটনায় দেখা গেছে, নিজেরাই মেরে তাদের কর্মী বলে দাবি করে বিজেপি। এ ঘটনার প্রকৃত তদন্ত চাইছেন গোঘাটে মানুষ।” প্রসঙ্গত, চলতি বছর ১৩ জুলাই বাড়ি থেকে কিছুটা দূরে একই ভাবে উদ্ধার করা হয়েছিল হেমতাবাদের বিজেপি বিধায়ক দেবেন্দ্রনাথ রায়ের ঝুলন্ত দেহ। এরপর থেকে রাজ্য রাজনীতিতে তর্জা শুরু হয়। তবে সেই ঘটনার কয়েকমাস কাটতে না কাটতেই ফের এই ঘটনা স্বাভাবিকভাবেই শাসকদলের বিরুদ্ধে উঠছে একাধিক প্রশ্ন।

হেমতাবাদের ছায়া গোঘাটে! উদ্ধার বিজেপি কর্মীর ঝুলন্ত দেহ, শাসকদলের বিরুদ্ধে অভিযোগের তির পরিবারের 1