ইরা দোলুইয়ের দুটি কবিতা

174
ইরা দোলুইয়ের দুটি কবিতা 1

   ইরা দোলুইয়ের দুটি কবিতা 2✍️কলমে: ইরা দোলুই

ঘ্রাণ

ইরা দোলুইয়ের দুটি কবিতা 3

গন্ধমাদন পাহাড়ের কথা ভেসে উঠতেই
মনে পড়ে এ শহরের গন্ধ গলির কথা!
জিভে জল আনা এক একটা সুবাস পাক খেতে খেতে
বস্তির বেড়াল গুলোর পেটে অবিরাম সুড়সুড়ি দেয়!
আহা কোনটা কসা মাংসের, কোনটা ইলিসের,
কোনটাবা গাওয়া ঘিয়ের ! কেউ তৃপ্তির ঢেঁকুর তোলে
তো কেউ ঘ্রাণেনঃ অর্ধ ভোজন! কী অদ্ভুত বৈরিতা!একদিকে প্রাসাদ নগরী তো অন্যদিকে বস্তি
একদিকে সুখ সমৃদ্ধি অন্যত্র দীন হীন ছিন্নতা!
অবশ্য এক -আধবার দুধ পোড়া বিকট গন্ধ‌ও আসে
সেই কটু গন্ধ বস্তির নাকে গেলে ডুকরে ওঠে
সকল সদ্যজাত শিশু থেকে দুগ্ধপোষ্যেরাও !
কারণ বস্তির পোড়া বুকে যে একটিও
পালান গাই নেই !

আরও পড়ুন -  কি নাম দেবো - ২৪

হিসাব মেলে না

ইরা দোলুই

দৈনন্দিন সন্ধ্যার ভাঁজে লেখা হয় রাত্রিকথা
তারপর ভালোবাসা বুক চিতিয়ে শুয়ে পড়ে
সেগুনের নন্দিত কারুকাজ ভরা বিছানায় ‌!
কতোনা বোবা কথা নীরবে পাশ ফিরে শোয়
কতো ভালোবাসাও দীর্ঘশ্বাসের দড়ি টানে!
অধিকারের চূড়ান্ত অভ্যাস‌ও খিলখিল হাসে!
কতোদিন মানিয়ে চলার শপথ টিকে থাকে!
কিসের অণ্বেষণে এ জীবন বয়ে বেড়ানো!
কে ফেরাবে রিল গোটানো সেই পঁয়ত্রিশটা বছর?
পাথর চাপা বিবর্ণ ঘাসের মতো আমিও
তাচ্ছিল্যের শয্যায় প্রতি রাতে বৈধ ধর্ষিতা!
_________