অরুণ চক্রবর্তীর দুটি কবিতা

112

অরুণ চক্রবর্তীর দুটি কবিতা 1✍️কলমে: অরুণ চক্রবর্তী

নিজের আপাত ছবি

দিন কাঁদলেও রাত তো হাসতে পারে বা বিপরীতও-
সব একই ওজনে মাপা ঠিক নয়
সব একই দৃষ্টিতে দেখাও ঠিক নয়
কাককে তো কোকিল ভেবে যেকোনো ঋতুতে
বসন্তের ছবি ভাবতে পারিনা
সব মানুষও আয়তন ওজন বা সবকিছুতে এক নয়
ভিন্নতা যদি নাই থাকে সূর্য চন্দ্র
তবে আলাদা সময়ে ওঠে কেন
মনের প্রশ্নের সাথে এর উত্তর মনেই খুঁজতে হবে
মুখাপেক্ষী হবার কোনো প্রয়োজন নেই-
রত্নাকর দস্যুর কথা স্মৃতির ভেতর রেখে হাঁটলে হোঁচটের সম্ভাবনা কম
খুব কঠিন নয়,শুধু খোলা চোখে
ইতিহাসের পাতায় ভাসতে হবে
জীবন যে কদিন তার আগে পরে হাঁটা যাবেনা
নিশ্চিত জেনে প্রতিদিনের কাজ গুছিয়ে রাখাই ভালো
রাতটা কাটবে খোলা জানালা দিয়ে দেখা
চাঁদের আলোর মতো—
সূর্য চাঁদের চলাফেরায় নিজের চলাফেরার একটা আপাত ছবি অন্তত পাবে–।

আরও পড়ুন -  দুটি কবিতা

মধ্যরাতের অপেক্ষায়

মধ্যরাত যখন হেঁটে বেড়ায় ঘুমন্ত চোখে
হৃৎপিণ্ড আঁকড়ে রাখে সব শাখাপ্রশাখা
নিস্তব্ধ ঘরের অদূরে খোলা রাস্তায় বাতিস্তম্ভে হেলান দিয়ে পরিযায়ী অপাপবিদ্ধ তীব্র পিপাসা দাঁড়িয়ে থাকে খোলা আকাশের দিকে
ভোর তখনো বেশ দূরে সংকেতের অপেক্ষায়
দৃশ্যমানতায় চুম্বন এঁকে স্বপ্নসব অলক্ষে হাত ধরাধরি করে জিজ্ঞেস করে চাঁদ কেন আসেনা কাছে সহজে–
হালকা ঘুম অজান্তেই গভীর হয়ে দৃশ্যান্তর ঘটায় চিত্রপটের–
অপেক্ষায় থাকতে হয় পরবর্তী মধ্যরাতের জন্য।

অরুণ চক্রবর্তীর দুটি কবিতা 2