সঙ্গে রুকস্যাক, ওড়িশা(সপ্তম, অষ্টম পর্ব), মীর হাকিমুল আলি

234
সঙ্গে রুকস্যাক, ওড়িশা(সপ্তম, অষ্টম পর্ব), মীর হাকিমুল আলি 1

ওড়িশা ভ্ৰমণ (৭+৮ পর্ব)                                                                      মীর হাকিমুল আলিসঙ্গে রুকস্যাক, ওড়িশা(সপ্তম, অষ্টম পর্ব), মীর হাকিমুল আলি 2নন্দনকানন জাতীয় উদ্যান 
দিনটা ছিল 3 জানুয়ারি 2018, আমরা পুরী ও ওড়িশার অন্যান্য জায়গা ঘোরার পর নন্দনকান জাতীয় উদ্যান যাবো ঠিক করেছি l পরিকল্পনা মতো আমরা সকাল 8 টা নাগাদ পুরী থেকে একটা লোকাল ট্রেন ধরি l প্রায় 2 ঘন্টা পর নামলাম একটা ছোটখাটো স্টেশন ‘বারং ‘এ l ওখান থেকে কিছুটা দূরেই এই জাতীয় উদ্যানটি অবস্থিত l স্টেশনে আমরা অটো ধরলাম l 5 মিনিটেই পৌঁছে গেলাম একেবারে উদ্যানের গেটের সামনে l চারদিকে বেশ দোকান পাট l খুব খিদে পেয়েছে তাই ওখানে ইডলি জাতীয় এক ধরনের খাবার খেলাম l দিয়ে টিকিট কাটলাম 40 টাকা প্রতি জন l ভেতরে ঢুকেই দেখি সামনে এক বিরাট ফোয়ারা l আর তার চারদিকে সবাই বিভিন্ন অঙ্গ ভঙ্গি করে সেলফি তুলছে, ছবি তুলছে l আমরাও তার ব্যতিক্রম রইলাম না lসঙ্গে রুকস্যাক, ওড়িশা(সপ্তম, অষ্টম পর্ব), মীর হাকিমুল আলি 3
উদ্যানের ভেতরে গাড়ি ভাড়া করে বিভিন্ন সাফারি তে যাওয়া যায় l কিন্তু আমরা পায়ে হেঁটেই ঘুরবো ঠিক করলাম l কোনদিকে কি আছে তার মানচিত্র নকশা দেখে হাঁটা দিলাম l প্রথমেই কতগুলো বাঁদরের সাথে দেখা l বসে বসে বিস্কুট খাচ্ছে l আমরা যেতেই ছুটে এসে এমন আবদার করতে লাগলো কি বলবো l বলতে চাইছে কিছু যেন ওদের খেতে দিই l কিন্তু খাবার নিয়ে ঢোকা যায়না l তাই আমাদের ব্যাগে কিছুই খাবার ছিল না l তাদেরকে কোনোক্রমে সামলে এগিয়ে গিয়ে দেখি একটা পুকুরের পাড়ে বসে আছে কতগুলো ভাল্লুক l কালো কালো বড় বড় l সঙ্গে রুকস্যাক, ওড়িশা(সপ্তম, অষ্টম পর্ব), মীর হাকিমুল আলি 4

ওখানেই আমি সঙ্গীহীন হয়ে পড়ি l আমার সঙ্গী সাথী দের ফোন করেও আর খুজে পাইনি l তারা অন্যদিকে চলে গেছে l নিরুপায় হয়ে একা একা ঘুরতে লাগলাম l আরো অনেকে যাচ্ছে তাদের পিছু পিছু আমিও চললাম, দেখলাম একটা বাঘ শুয়ে আছে একটা মাচার ওপর l ঘুমোচ্ছে, বাইরের এতো চিৎকার চেঁচামেচিতেও তার ঘুম ভাঙছে না l আরো এগোলাম একটা সিংহ শুধু পায়চারি করছে দেখলাম lওটা জন্মেছে 23 জুলাই 2015 সালে l ওর মা এর নাম রাধা l

সঙ্গে রুকস্যাক, ওড়িশা(সপ্তম, অষ্টম পর্ব), মীর হাকিমুল আলি 5

কিছুটা যেতেই দেখি আবার এক বাঘ l সেও একই ভাবে পায়চারি করে যাচ্ছে মন দিয়ে l কে কি করছে, বলছে তার কোনো ভ্রূক্ষেপ নেই তার l এবার দেখলাম কত গুলো নেকড়ে বাঘ জল খাচ্ছে l দেখতে শেয়ালের মতো l দেখলাম আর এক সিংহ কে, এর আবার এই বড়ো বড়ো কেশর l
হেঁটেই চলেছি অধীর আগ্রহে এবার কি আছে এবার কি আছে? এবার দেখলাম সাদা বাঘ l এই জাতীয় উদ্যানে সব থেকে বেশি সাদা বাঘ আছে l
দেখলাম দুটি সাদা বাঘ দূরে শুয়ে আছে l তারপর আবার কয়েকটা আলাদা বাঘ, কিছু দূরে আবার দেখলাম চিতা বাঘ l এই ভাবে কত যে বাঘ দেখলাম তার হিসেব রাখিনি lবাঘ সাফারি শেষ হলো এই উদ্যানে অনেক বাঘ জন্ম নিয়ে বড়ো হয়েছে, এরকম দুটি সাদা বাঘ হলো দীপক আর গঙ্গা lসঙ্গে রুকস্যাক, ওড়িশা(সপ্তম, অষ্টম পর্ব), মীর হাকিমুল আলি 6
এবার হাতি সাফারি, জঙ্গলের ভেতর হেঁটেই চলেছি, তার পর তাদের দেখা পেলাম l দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে ঘাস খাচ্ছে l

এবার জিরাফ l খুব সামনে জীবনে প্রথম জিরাফ দেখে খুব খুশি হলাম l এতো বড়ো বন পায়ে হেঁটে ঘোরা সত্যি ই কষ্টকর l এটুকুতেই হাঁপিয়ে উঠেছি lচারদিকে এতো কিছু কোনটা দেখবো কোনটা ছাড়বো কিছু ঠিক করতে পারছিলাম না l দেখলাম কিছু কুমির যাদের মুখ গুলো সরু সরু, জল থেকে উঠে তারা রোদ পোহাচ্ছে l কিছু দূরেই কয়েকটা চমরী গাই মনের সুখে চরে বেড়াচ্ছে l
ঢুকলাম পেঁচার গুহায় l কত রকমের পেঁচা l সেখান থেকে চলে গেলাম বনমানুষ এর আস্তানায় l গরিলা, ওরাং ওটাং দেখে পৌঁছে গেলাম সরীসৃপ পার্কে l গেটে বিরাট ট্রাইনোসোরাস এর মূর্তি l 18 প্রজাতির সরীসৃপ এখানে আছে l কত রকমের সাপ, কচ্ছপ, গোসাপ, কুমির ইত্যাদি যে দেখলাম তার ঠিক নেই l

দুপুর হয়ে গেল l এবার পৌঁছে গেলাম একটা খুব বড়ো জলাশয়ের ধারে l সেখানে জলহস্তী গুলো স্ট্যাচু এর মতো দাঁড়িয়ে আছে l চার দিকে বাঁদারেরা লাফ ঝাঁপ খাচ্ছে lসঙ্গে রুকস্যাক, ওড়িশা(সপ্তম, অষ্টম পর্ব), মীর হাকিমুল আলি 7কাঞ্জিলা বলে একটা বিশাল হ্রদ আছে l সেখানে পদ্ম ফুল ফুটে আছে l বোটিং করছে অনেকেই l
এবার পাখি দের মহলে ঢুকলাম l কত রকম পাখি l সাদা ময়ূর আর কালো রাজ হাঁস দেখে খুব আনন্দ পেলাম l এ ছাড়াও হাঁস মুরগি থেকে শুরু করে ছোট বড়ো শত শত পাখি খাঁচার ভেতর বন্দি l শকুন, বাজ পাখি, উট পাখি আরো কত কি !
নীল গাই, বিভিন্ন গরু, বুনো শুকর দেখলাম l
হরিনের দল ঝাঁকে ঝাঁকে ঘুরে বেড়াচ্ছে l সে দেখার মতো দৃশ্য l

সবার শেষে গেটের দিকে রওনা দিলামl ঢুকলাম আয়কোয়ারিয়ামের দেশে l সেখানে মাছ কত রকমের, পিনহারা মাছ দেখলাম সচক্ষে l
বিকেল হয়ে গেল সব ঘুরতে ঘুরতে, এবার ফেরার পালা l বন্ধুদের ফোন করে খুঁজে বার করলাম l বাইরে বেরিয়ে খাবার খেলাম l
নন্দনকানন সম্পর্কে কিছু তথ্য :400 হেক্টর বা 990 একর জায়গা জুড়ে এটি অবস্থিত l ভুবনেশ্বর থেকে কিছুটা দূরে l নিকটবর্তী স্টেশন – Barang প্রতিষ্ঠা -1960, চালু হয় -1979, 134 একর কাঞ্জিলা হ্রদ ,নন্দনকানন কথার অর্থ স্বর্গের উদ্যান lপ্রতি বছর 3.3 লক্ষ পর্যটক ঘুরতে আসেন l 1660 প্রাণী, 166 বর্গের প্রাণী যার মধ্যে
67 স্তন্যপায়ি ,18 সরীসৃপ ।34 টি আকোয়ারিয়া
5000sq ft অর্কিড বাগান l

তালসারি, উদয়পুর, চন্দনেশ্বর মন্দির সঙ্গে রুকস্যাক, ওড়িশা(সপ্তম, অষ্টম পর্ব), মীর হাকিমুল আলি 8দীঘা ঘুরতে গিয়ে হাতে সময় থাকলে তালসারি, উদয়পুর সবাই যেতে বলেন l তাই আমরাও ভাবলাম যাওয়া যাক l সেপ্টেম্বর মাসের 24 তারিখ 2018, আমরা একটা টোটো ভাড়া করে ছ’জন চললাম তালসারি l
তালসারি নিউ দীঘা থেকে কিছু কিলোমিটার দূরে একটা অতি সুন্দর, নিরিবিলি সাদা বালির সমুদ্র সৈকত l যার পূর্ব দিকে উদয়পুর পুর আর নিউ দীঘা l এই সৈকতে লাল কাঁকড়া আর এক আকর্ষণ l সঙ্গে রুকস্যাক, ওড়িশা(সপ্তম, অষ্টম পর্ব), মীর হাকিমুল আলি 9
দীঘার রাস্তা শেষে হলো কখন বুঝতে পারিনি, রাস্তার ধারে দোকানে ওড়িয়া লেখা দেখে বুঝলাম ওড়িশা এসে গেছি l রাস্তা কালো পিচে তৈরী l খুব সুন্দর রাস্তা l দুই দিকের নারিকেল গাছের সারি আর ঘরবাড়ি দেখতে দেখতে পৌঁছে গেলাম তালসারি l টোটো থেকে নেমে চললাম, রাস্তার ধারে চশমা,টুপির দোকান l সেখানে চশমা কেনার জন্য কিছু সময় নষ্ট করলাম l তারপর পর সামনের দোকানে সকালের খাবার খেয়ে ফেরি ঘাটে গেলাম l তখন জোয়ার চলছিল l সেখান থেকে দূরে একটা দ্বীপের মতো দেখা যাচ্ছে, সেটির একদিকে গাছে ভরা l
জোয়ার থাকলে নৌকা করে যেতে হয় ওই তালসারি বীচেl ভাটা থাকলে হেঁটেই যাওয়া যায় l অনেকে মোটরবাইক ভাড়া করেও যেতে পারে l জোয়ারের সময় যেখানে এক বুক জল থাকে সেখানে ভাটার সময় এক হাঁটু বা তারও কম জল থাকে lসঙ্গে রুকস্যাক, ওড়িশা(সপ্তম, অষ্টম পর্ব), মীর হাকিমুল আলি 10
তালসারি সমুদ্র সৈকতের পূর্ব দিক বা মাঝ বরাবর অনেক লাল কাঁকড়া দেখতে পাওয়া যায় l সামনে গেলেই গর্তে ঢুকে যায় l দূর থেকে লাল ফুল পড়ে চারদিক ভরে গেছে বলে মনে হয় l আর তার পরেই নীল বঙ্গোপসাগর l এখানেও বাইক ভাড়া পাওয়া যায় l ঘোরা যায় বীচের শেষ পর্যন্ত l
বিস্তীর্ণ সাদা বালুকাময় এই বীচের একদিকে কিছু গাছ আছে l খুব সুন্দর হাওয়ার শব্দ আর প্রকৃতির নিজস্ব কলতান শুনতে শুনতে বালিতে হাঁটতে হাঁটতে সময় হয়ে গেল ফেরার l

উদয়পুর :
তালসারি থেকে উদয়পুর খুব বেশি দূর নয় l এটি পশ্চিমবঙ্গ ও ওড়িশার সীমান্তবর্তী অঞ্চলে অবস্থিত l খুব সুন্দর একটি সৈকত l একধারে লম্বা লম্বা ঝাউ গাছের বন আর একদিকে আদিগন্ত সমুদ্র l মাঝে বাঁধানো রাস্তা l আর সামনেই নৌকার সারি l জেলেদের জাল আর দোকানপাট l
শীতকালে এখানে অনেক পিকনিক হয় l ডাব পাওয়া যায় অনেক l আমরা তো বেশ বড়ো বড়ো ডাব ও কচি নারকেল খেলাম l বীচের আর একদিকে অনেক চেয়ার সাজানো আছে l এখানে বসে বসে সবাই পানীয় পান করে আর সমুদ্রের হাওয়া উপভোগ করে l স্নানও করছে অনেকেই l
আমরা নিউ দীঘায় স্নান করবো বলে সমুদ্রে না নেমেই ওখান থেকে ফেরার মনস্থির করলাম l

চন্দনেশ্বর মন্দির :সঙ্গে রুকস্যাক, ওড়িশা(সপ্তম, অষ্টম পর্ব), মীর হাকিমুল আলি 11এবার আমাদের গন্তব্য চন্দনেশ্বর মন্দির l বিখ্যাত এই মন্দিরটি বালেশ্বর জেলায় অবস্থিত l বালেশ্বর স্টেশন বা বাসষ্ট্যান্ড থেকে সহজেই যাওয়া যায় l দীঘা থেকেও বাস, অটো, টোটো করে যাওয়া যায় l এটি একটি শিব মন্দির l চৈত্র মাসে এখানে বিখ্যাত চড়কমেলা হয় l তখন দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ভক্তরা এসে তাদের অর্ঘ্য দেনl চার -পাঁচ লক্ষ্য ভক্তের সমাগম হয় l এমনিতেও সারা বছর মানুষের ভীড় চোখে পড়ার মতো l এখানে একটি পুকুর আছে l সেখানে সবাই স্নান করে মান্যত করছে মন্দিরে l কেউ বা লম্বা হয়ে শুয়ে পড়ে আবার উঠে এগিয়ে চলেছে l সারাদিন গমগম পরিবেশ l
যাইহোক দুপুর হয়ে গেছে আমরা আবার টোটো করে ফিরতে লাগলাম lফেরার পথে আরো এক রাধা কৃষ্ণ মন্দির দেখলাম l
একদিনের এই তালসারি, উদয়পুর, চন্দনেশ্বর মন্দির ঘুরে আশা স্মৃতি হয়ে মনের মনিকোঠায় তোলা রইলো l বাসনা রাখলাম আবার যাবার l
পরের পর্ব……… ক্রমশ l

Previous articleজঙ্গলে আগুন, ভয়ে লোকালয়ে হরিণ! ঝাড়গ্রামে কুকুরের কামড়ে প্রাণ গেল শাবকের
Next articleআজকের রাশিফল, ৪ঠা মার্চ’২০২১