‘ লাল শঙ্কর’য়ের স্মৃতি ভুলতে নারাজ শিলিগুড়ির গেরুয়া কর্মীদের একাংশ! ফেস্টুন থেকে ফেসবুকে আছড়ে পড়ছে ক্ষোভের ঝড়

208
' লাল শঙ্কর'য়ের স্মৃতি ভুলতে নারাজ শিলিগুড়ির গেরুয়া কর্মীদের একাংশ! ফেস্টুন থেকে ফেসবুকে আছড়ে পড়ছে ক্ষোভের ঝড় 1

নিউজ ডেস্ক: যে মানুষটি দুদিন আগেও বিজেপির বিরুদ্ধে আজেবাজে কথা বলেছে সে কি করে বিজেপিতে যোগ দিয়েই প্রার্থী হল,প্রশ্ন তুলছেন আদি বিজেপি কর্মীরা।শিলিগুড়িতে যে চাপানউতোর শুরু হয়েছে তাতে করে শংকরের প্রার্থীপদ আদৌ থাকবে কি না তা নিয়ে থেকে যাচ্ছে সংশয়।

' লাল শঙ্কর'য়ের স্মৃতি ভুলতে নারাজ শিলিগুড়ির গেরুয়া কর্মীদের একাংশ! ফেস্টুন থেকে ফেসবুকে আছড়ে পড়ছে ক্ষোভের ঝড় 2

শিলিগুড়ির বিজেপি প্রার্থী শঙ্কর ঘোষের বিরুদ্ধে পোস্টার পড়ল শিলিগুড়ি শহরে। সদ্য সিপিআইএম দল ত্যাগ করে বিজেপিতে যোগদান করেছিলেন শিলিগুড়ি মিউনিসিপাল কর্পোরেশনের 24 নম্বর ওয়ার্ডের কো-অর্ডিনেটর তথা বামনেতা শংকর ঘোষ। আর দল ত্যাগ করার দুদিন বাদেই মিলে গেল বিজেপি দলের টিকিট। বাম থেকে রামে আশা এই নেতা কে মেনে নিতে পারছেন না অনেকেই। বিজেপি নেতা কর্মী-সমর্থকরা বাম থেকে দলে আসা নয়া এই নেতাকে প্রার্থী হিসেবে মানতে পারছেন না। বেশ কয়েকজন বিষয়টি নিয়ে মুখ খুলতে শুরু করেছেন। শুক্রবার রাতেই শিলিগুড়ি শহরের বিভিন্ন এলাকায় বিজেপি প্রার্থীর শংকর ঘোষ কে নিয়ে পড়ল পোস্টার। পোস্টারে লেখা রয়েছে। ছাত্র হত্যার নায়ক শংকর ঘোষ কে একটিও ভোট নয়। কোনো পোস্টারে লেখা রয়েছে সনু পাটেল এর আত্মার শান্তি কামনায় শংকর ঘোষ কে একটিও ভোট নয়। আবার কোন পোস্টারে লেখা রয়েছে ছাত্র আন্দোলনের কলঙ্ক শংকর ঘোষ কে একটিও ভোট নয়। তবে কে বা কারা এই পোস্টটার মারলো তা নিয়ে শুরু হয়েছে জল ঘোলা। শঙ্করবাবু সিপিআইএম দল ত্যাগ করে বিজেপিতে গেছেন এটা মেনে নিতে পারছে না বাম ছাত্র রাজনীতিতে তার সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে লড়াই করে আসা অনেকেই। এবার শঙ্করবাবু লড়াই করছেন তারই রাজনৈতিক গুরু অশোক ভট্টাচার্যের সাথে। তবে শংকর বাবু কে নিয়ে এই পোস্ট আর কে বা কারা শহরের বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে দিল সেটাই এখন বড় প্রশ্ন।

' লাল শঙ্কর'য়ের স্মৃতি ভুলতে নারাজ শিলিগুড়ির গেরুয়া কর্মীদের একাংশ! ফেস্টুন থেকে ফেসবুকে আছড়ে পড়ছে ক্ষোভের ঝড় 3

প্রাক্তন সিপিএম নেতার বিরুদ্ধে একগুচ্ছ অভিযোগ তুলে সরব হয়েছেন বিজেপিরই নেতা কর্মীদের একাংশ। রীতিমতো সাংবাদিক সম্মেলন করে শংকর ঘোষ তো বটেই দলীয় নেতৃত্বের একাংশের বিরুদ্ধেও ক্ষোভ উগরে দেন তাঁরা। এদিন বিজেপির প্রাক্তন জেলা সভাপতি নৃপেন দাস, দলের চিকিৎসক সংগঠনের নেতা কৃষ্ণেন্দু দে, আইনজীবী নেতা কল্যাণ সাহাকে সঙ্গে নিয়ে সাংবাদিক সম্মেলন করেন।

নৃপেনবাবুর অভিযোগ, শংকর ঘোষ দুর্নীতিগ্রস্ত, ক্ষমতালোভী ও স্বার্থপর। যিনি দুদিন আগে পর্যন্ত বিজেপিকে যিনি দেখতে পারতেন না,তিনি দলের প্রার্থী হতে পারেন না। কোনও ভাবেই যাতে শিলিগুড়ির মানুষ শংকর ঘোষের পাশে না দাঁড়ান সেই আবেদনও জানান তিনি।

দলের জেলা সভাপতি প্রবীণ আগরওয়ালকেও একহাত নিয়েছেন নৃপেনবাবু। তিনি জানিয়েছেন সভাপতি দলীয় দপ্তর নির্মাণে সাত কোটি টাকার কোনও হিসেব দেননি।তার বিরুদ্ধে মামলা করারও হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তিনি।

বিজেপির রাজ্য স্তরের এক নেত্রী শংকর ঘোষের বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করে ফেসবুকে পোস্টও করেন। দলের আরও এক গুরুত্বপূর্ণ নেতা রথীন বোসও ফেসবুকে হতাশা প্রকাশ করে ইঙ্গিতবাহী পোস্ট করেছেন। সব মিলিয়ে শংকর ঘোষকে নিয়ে বিজেপির অন্দরের পরিস্থিতি যথেষ্টই অস্বস্তিকর।

শহরে তাঁর বিরুদ্ধে পোস্টার পড়া প্রসঙ্গে শংকর ঘোষ জানান, যা সত্য নয় তাই রাতের অন্ধকারে হয়। বিষয়টিকে তিনি গুরুত্ব দিতে নারাজ৷ পাশাপাশি বিষয়টি শিলিগুড়ি জেলা সাংগঠনিক সভাপতি প্রবীণ আগরওয়ালকে জানাবেন এবং পুলিশের কাছে অভিযোগও দায়ের করবেন বলেও জানিয়েছেন তিনি।

Previous articleওদের মাথার উকুন আমি বাছতেও যাব না, ঠেকাতেও যাব না; স্বমহিমায় অনুব্রত
Next articleভোটের মুখে একের পর এক সাফল্য শিলিগুড়ি পুলিশের! উদ্ধার আগ্নেয়াস্ত্র, গ্রেপ্তার একাধিক ডাকাত ও দুষ্কৃতি