জেটলির মূর্তি উদ্বোধনে সৌরভ অমিত শাহের সঙ্গে, জল্পনা আরও বাড়ল বঙ্গে

286
জেটলির মূর্তি উদ্বোধনে সৌরভ অমিত শাহের সঙ্গে, জল্পনা আরও বাড়ল বঙ্গে 1

নিজস্ব সংবাদদাতা: রবিবার হঠাৎই  রাজভবনে গিয়ে রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়ের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে জল্পনা বাড়িয়ে দিয়েছিলেন। সেই জল্পনাই দ্বিগুন হয়ে গেল সোমবার যখন ফিরোজ শাহ কোটলায় অরুণ জেটলির মূর্তির উন্মোচনের অনুষ্ঠানে হাজির হলেন ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিসিআই) সভাপতি সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। শুধু তাই নয় মূর্তি উন্মোচনের পর পাশাপাশি কিছুক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গেল  সৌরভ এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহকে।

আগামী বছর বাংলায় বিধানসভা নির্বাচনের আগে এমনিতেই সৌরভের রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ নিয়ে জল্পনা চলছে। এমনকী সৌরভকে বিজেপি মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী করতেও পারে বলে গুঞ্জন থামছে না। যদিও বঙ্গ সফরে এসে সেই প্রশ্নের জবাবে শাহ জানিয়েছিলেন, মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থীর তালিকায় অনেকের নাম আছে। তা নেহাত ছোটো নয়। তাত্‍পর্যপূর্ণভাবে সৌরভের সম্ভাবনাও খারিজ করে দেননি শাহ।

জল্পনা আরও প্রবল হয়েছিল এবছর বঙ্গ বিজেপির মহিলা সমস্যাদের আয়োজিত দুর্গাপূজায় সৌরভ জায়া ডোনা গাঙ্গুলির উপস্থিতি। সেখানেষষ্ঠীর সকালে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর অনুষ্ঠানে পারফর্ম করেছিলেন ডোনা। তাছাড়া সৌরভের ৪৮ তম জন্মদিনে সাংবাদিকরা ডোনাকে যখন প্রশ্ন করেন যে মহারাজরাজ্য বিজেপির ‘মুখ’ হয়ে উঠতে চলেছেন কিনা, জবাবে ডোনা জানিয়েছিলেন, সৌরভ যে পিচেই খেলেন, সেখানেই শীর্ষে থাকেন। রাজনীতিতে যোগ দিলে সেখানেও সৌরভ ‘শীর্ষে’ থাকবেন বলে আশাপ্রকাশ করেছিলেন ডোনা। তিনি অবশ্য এও  জানিয়েছিলেন, সৌরভ রাজনীতিতে নামার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন কিনা, সে বিষয়ে তিনি কিছু জানেন না।

জেটলির মূর্তি উদ্বোধনে সৌরভ অমিত শাহের সঙ্গে, জল্পনা আরও বাড়ল বঙ্গে 2

জানা গেছে আজ অর্থাৎ সোমবার ৬৮ তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষ্যে দিল্লির ফিরোজ শাহ কোটলায় প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর মূর্তি উন্মোচন পর্বে প্রথমে শাহের আগমন নিয়ে অনিশ্চয়তা ছিল। কিন্তু শেষ অবধি  অনুষ্ঠানে এসে পৌঁছান শাহ। অনেকে মনে করছেন সৌরভ আসার কথা ভেবেই শত ব্যস্ততার মধ্যে শাহ এসে পৌঁছান। কিছুটা দূরত্বে হলেও মূর্তি উন্মোচনের পর শাহের বাঁ-দিকে দাঁড়িয়েছিলেন সৌরভ। পরে দেখা যায় একেবারে পাশাপাশিও দাঁড়ান তাঁরা।

গতকাল বিকেলের পর থেকে জল্পনা বাড়তে থাকায় সৌরভ এক সময় বলেছিলেন, “অযথা জল্পনা ছড়াবেন না।নেহাতই সৌজন্য মূলক সাক্ষাৎকার করতেই রাজ্যপালের কাছে আসা।’ কিন্তু পরেরদিনই তাঁর হঠাৎই দিল্লি উড়ে যাওয়া এবং যদি কাকতলীয় হয় তবুও শাহের সান্নিধ্যে আসা ফের জল্পনাকে তুঙ্গে নিয়ে গেল।

উল্লেখ্য প্রয়াত মন্ত্রী অরুণ জেটলি ১৯৯৯ সাল থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত দিল্লি অ্যান্ড ডিস্ট্রিক্ট ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের (ডিডিসিএ) প্রেসিডেন্ট ছিলেন। আপাতত সেখানে দায়িত্বে আছেন তাঁর পুত্র রোহন জেটলি। কিন্তু শুধুমাত্র একজন প্রাক্তন প্রেসিডেন্টের মূর্তি উন্মোচনের আমন্ত্রণে তিনি দিল্লি উড়ে গেলেন তাও আবার আগের দিন রাজ্যপালের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেই! এখানেই রহস্য খুঁজছেন অনেকে।