থাইল্যাণ্ডের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে প্রতি মাসে ৩৬ লক্ষ টাকা ঢুকেছে ম্যাডামের নামে, পুরীতে হোটেল, দুর্গাপুরে বাড়ি! নাম না করে অভিষেক প্রসঙ্গে তমলুকের সভায় বিস্ফোরক শুভেন্দু

738
থাইল্যাণ্ডের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে প্রতি মাসে ৩৬ লক্ষ টাকা ঢুকেছে ম্যাডামের নামে, পুরীতে হোটেল, দুর্গাপুরে বাড়ি! নাম না করে অভিষেক প্রসঙ্গে তমলুকের সভায় বিস্ফোরক শুভেন্দু 1

অশ্লেষা চৌধুরী: প্রত্যেকমাসে ৩৬ লক্ষ টাকা করে থাইল্যাণ্ডের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ঢুকেছে, ম্যাডাম নারেলার নামে। কে ইনি? এবারে অভিষেককে নিশানা করে বিস্ফোরক শুভেন্দু, সেইসাথেই তাঁর দাবী ১৬ই ফেব্রুয়ারির আগে মাননীয়ার বাড়ীতেও ফুটবে পদ্ম।

থাইল্যাণ্ডের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে প্রতি মাসে ৩৬ লক্ষ টাকা ঢুকেছে ম্যাডামের নামে, পুরীতে হোটেল, দুর্গাপুরে বাড়ি! নাম না করে অভিষেক প্রসঙ্গে তমলুকের সভায় বিস্ফোরক শুভেন্দু 2

রবিবার কুলতলির সভা থেকে অভিষেক বলেছিলেন, ২১ বছর খেয়ে মধু, মীরজাফর এখন সাজছে সাধু।‘ সোমবার তমলুকের জনসভা থেকে তারই পাল্টা তোপ দাগলেন শুভেন্দু। তিনি বলেন, ‘থাইল্যান্ডের একটি ব্যাংকে প্রতি মাসে ৩৬ লক্ষ করে কার অ্যাকাউন্টে টাকা ঢুকেছে?’ সেই অ্যাকাউন্টের রসিদ তার কাছে আছে বলেও তিনি দাবী করেন।

থাইল্যাণ্ডের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে প্রতি মাসে ৩৬ লক্ষ টাকা ঢুকেছে ম্যাডামের নামে, পুরীতে হোটেল, দুর্গাপুরে বাড়ি! নাম না করে অভিষেক প্রসঙ্গে তমলুকের সভায় বিস্ফোরক শুভেন্দু 3

শুভেন্দু প্রশ্ন তোলেন, মাননীয়া-তোলাবাজ বিনয় মিশ্র সম্পর্কে কিছু কেন বলছে না? দশ বছর মধু খেয়েছি! মধু তো তুমি খাচ্ছো। চিকিৎসা করাতে সিঙ্গাপুরে যাও। আর আমি গ্রামের হাসপাতালে। আমার বাড়ীতে ১০ বছরে একটা তালাও বাড়েনি। তোমার তো একের পর এক প্লট। হরিশচন্দ্র স্ট্রিটে চার তলা বাড়ী, দুর্গাপুরে কারখান। পুরিতে হোটেল। আর কি বলব…!

এরপর তিনি বলেন, ‘‘গতকাল তোলাবাজ ভাইপো বলেছেন শুভেন্দু ঘুসখোর, মধুখোর। তার জবাবে শুভেন্দু বলেন, ‘ছোট বয়স থেকে হাত পাকিয়েছেন কীভাবে চিটিংবাজি করা যায়। ‘আমার বিরুদ্ধে আজ এত দুর্নীতির অভিযোগ তোলা হচ্ছে। আমার ভেতর যখন এতই দুর্নীতির অভিযোগ, তখন কেন আমাকে ধরে রাখার জন্য এত জোর করা হয়েছিল? দলে থাকার জন্য কেন আমাকে হাতে পায়ে ধরা হয়েছিল? তাঁর সংযোজন।

নারোদা কেলেঙ্কারি প্রসঙ্গেও এদিন মুখ খোলেন শুভেন্দু। সুব্রত মুখোপাধ্যায়, সৌগত রায়, কাকলি ঘোষ দস্তিদার ও ববি হাকিমের বিরুদ্ধেও ইঙ্গিত করেন। একইসঙ্গে তিনি বলেন, কেডি সিং-কে এই কাজে নিয়োগ করেছিলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়।

এদিনের সভা থেকেই কালীঘাটেও পদ্ম ফোটানোর হুঁশিয়ারি দেন শুভেন্দু। সেইসাথেই তিনি বলেন, ‘আমার বাড়িতেও পদ্ম ফুটতে শুরু করেছে। রাম নবমীর আগে সব পদ্ম ফুটে যাবে।‘ আর স্বভাবিক ভাবেই তাঁর এই বক্তব্য যথেষ্ট জল্পনার জন্ম দিয়েছে। আপাতত শুভেন্দুর বাবা শিশির অধিকারী ও দিব্যেন্দু অধিকারী এখনও ঘাসফুল শিবিরেই রয়েছেন, তাহলে কী তারাও পদ্ম শিবিরে নাম লেখাবেন!

প্রশ্ন উঠছে  কালীঘাটে পদ্ম ফোটানো মানে কী মাননীয়ার পরিবারের কেউ নাম লেখাচ্ছেন পদ্ম শিবিরে! কারণ ২১ শে এপ্রিল রাম নবমী, আর সূত্র মারফৎ জানা যাচ্ছে সেই সময়ের মধ্যেই বিধানসভা নির্বাচন সম্পন্ন হবে বঙ্গে। আর রাম নবমীতে পদ্ম ফোটানোর কথা কেবল আজই নয়, একাধিকবার এই সুর শোনা গিয়েছে শুভেন্দুর গলায়। এবার শুভেন্দুর এই দাবী ও আত্মমনোবল কতটা প্রকট, তা সময় বলবে।

Previous articleআজকের রাশিফল: ২৬শে জানুয়ারি’২০২১
Next articleএবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাড়িতেই পদ্ম ফোটানোর চ্যালেঞ্জ শুভেন্দুর! পদ্ম ফুটবে ১৬ফেব্রুয়ারির আগেই