TAIPA বি.এস.এন.এল কে তার বকেয়া ১৫০০ কোটি টাকা শিঘ্রই মেটাতে বলেছে।

179
TAIPA বি.এস.এন.এল কে তার বকেয়া ১৫০০ কোটি টাকা শিঘ্রই মেটাতে বলেছে। 1

ডিজিটাল ডেস্ক: টেলিকম ইনফ্রাস্ট্রাকচার কোম্পানিগুলো বিএসএনএলকে তার বকেয়া ১৫০০ কোটি টাকা খুব শীঘ্রই মেটাতে বলেছে। এবং তারা জানিয়েছেন যে নেটওয়ার্ক বজায় রাখার জন্য যে অর্থ প্রয়োজন সে অর্থ তারা মেটাতে পারছে না। এবং তারা জানিয়েছে যদি বি এস এন এল সময়মতো তার বকেয়া অর্থ না মেটায় তাহলে ভারতের অনেক জায়গাতে নেটওয়ার্ক প্রবলেম দেখা দিতে পারে।

মোট আটটি টাওয়ার ইনফ্রাস্ট্রাকচার কোম্পানির কাছে এই বকেয়া তাদের আছে। টাওয়ার এন্ড ইনফ্রাস্ট্রাকচার প্রোভাইডার অ্যাসোসিয়েশন এদিন তারা একটি লিখিত আকারে বিএসএনএল এর চেয়ারম্যান কে জানান যে ‘‘টেলিকম পিএসইউর নেটওয়ার্ক বজায় রাখার জন্য বিদ্যুৎ, ডিজেল, ব্যাটারি সংগ্রহ ইত্যাদির জন্য অর্থ প্রয়োজন সেটি তাদের কাছে নেই। তাই তারা বিএসএনএল কে তার সমস্ত বকেয়া অর্থ খুব শীঘ্রই মিটিয়ে দেওয়ার কথা বলা বলেছে যদি বিএসএনএল তা না করে তাহলে ভারতের বিভিন্ন জায়গায় নেটওয়ার্ক পরিষেবায় ব্যাঘাত ঘটতে পারে বলে জানিয়েছে তারা।

TAIPA বি.এস.এন.এল কে তার বকেয়া ১৫০০ কোটি টাকা শিঘ্রই মেটাতে বলেছে। 2

(TAIPA) এর ডিরেক্টর জেনারেল টি.আর‌ দুয়া জানিয়েছেন যে এ লগডাউন পিরিওডে সমস্ত টাওয়ার ইন ইনফ্রাস্ট্রাকচার কোম্পানিগুলোই এখন আর্থিক সংকটের মুখে।

(TAIPA) এও জানিয়েছে যে টাওয়ার ইনফ্রাস্ট্রাকচার কোম্পানিগুলির জমির মালিকদের অর্থাৎ যাদের জমির উপরে টাওয়ার আছে এবং বিদ্যুৎ বিল ব্যাটারি ইত্যাদি সংগ্রহ করতে এবং মেইনটেনেন্সের খরচা ইত্যাদির জন্য তারা নানান সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছে তাই তারা বি এস এন এল‌ কে তার বকেয়া অর্থ খুব শীঘ্রই মিটিয়ে দিতে বলেছে।

যেসব কোম্পানির কাছে বিএসএনএলের বকেয়া আছে সেগুলি হলো মোবাইল টাওয়ার সংস্থা এটিসি-র ৬০৬.৪ কোটি টাকা, ব্রডব্যান্ড প্রযুক্তি সংস্থা স্টারলাইট টেকনোলজির কাছে ৪৮৮ কোটি টাকা, সিন্ধু টাওয়ারের জন্য ১২৭ কোটি টাকা, টাওয়ার ভিশনের কাছে ১১৮.২ কোটি এবং ভারতী ইনফ্রিটলের কাছে ১০০ কোটি টাকা বকেয়া রয়েছে বি এস এন এল এর।