ভয়াবহ রূপ নিচ্ছে ‘তাউকত’! ম্যাঙ্গালোরে নৌকা উল্টে মৃত ১, নিখোঁজ ৬ জন

75
Advertisement

নিউজ ডেস্ক: প্রবল বেগে ইতিমধ্যেই ভারতের বেশ কিছু জায়গায় আছড়ে পড়ছে ‘তাউকত’। ঘূর্ণিঝড় ‘তাউকত’ গোয়ার বেশ কয়েকটি জায়গায় তীব্র হাওয়া এবং ভারী বৃষ্টিপাতের কারণে বৈদ্যুতিক খুঁটি উপড়ে ফেলেছে এবং অনেক এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ ব্যাহত হয়েছে। কর্মকর্তারা জানিয়েছেন যে, এখনও পর্যন্ত কোনও হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি। গোয়ার জ্বালানি মন্ত্রী নীলেশ ক্যাব্রাল বলেছেন যে, প্রবল বাতাসের কারণে বৈদ্যুতিক খুঁটি উপড়ে পড়েছে, যার কারণে গোয়ার বেশিরভাগ জায়গায় বিদ্যুৎ চলে গেছে।

Advertisement

ম্যাঙ্গালোরে উপকূলে ১০ সামুদ্রিক মাইল দূরে রক্ষণাবেক্ষণে সহায়তা করতে গিয়ে নৌকা উল্টে গেছে।এতে একজনের মৃত্যু হয়েছে এবং নিখোঁজ এখনও ছয়জন। শুক্রবার বন্দরের বাইরে ম্যাঙ্গালোর বন্দরের ১৭ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত একক পয়েন্ট ফেরি সেন্টারে রক্ষণাবেক্ষণের কাজ শুরু করতে ৯ জনকে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। পুলিশ সূত্রে খবর, শনিবার উপকূলে ফেরার সময়, প্রতিকূল মৌসুমী পরিস্থিতির কারণে ফেরি ঝড়ের কবলে  আটকে পড়েন তারা।

Advertisement
Advertisement

এর আগে কেরলে ঘূর্ণিঝড়ের কারণে ৬ জেলা, ৩ টি উপকূলীয় জেলা এবং ৩ টি মালনাড জেলায় ভারী থেকে খুব ভারী বৃষ্টি হয়েছে। এখনও পর্যন্ত ৪ জন প্রাণ হারিয়েছেন, ৭৩ টি গ্রাম ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে।অন্যদিকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ মহারাষ্ট্র, গুজরাট, দামান ও দিউয়ের মুখ্যমন্ত্রী এবং দাদ্রা এবং নগর হাভেলি প্রশাসকদের সাথে বৈঠক করছেন।

আইএমডি জানিয়েছে যে, ১৮ ই মে বিকেলে উত্তর-উত্তর-পশ্চিম দিক থেকে এবং পোরবন্দর ও নালিয়ার মধ্যে গুজরাট উপকূল অতিক্রম করার সম্ভাবনা রয়েছে। ১৭ ই মে, মুম্বাই সহ উত্তর কোঙ্কনে কয়েকটি জায়গায় প্রবল বাতাস এবং ভারী বৃষ্টিপাত হবে।

ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলায় প্রস্তুত ভারতীয় বিমানবাহিনী, নৌ ও ন্যাশনাল ডিজাস্টার রেসপন্স ফোর্স (এনডিআরএফ)। ঘূর্ণিঝড়ের কারণে আগামী কয়েকদিনে দেশের পশ্চিম উপকূলে ‘খুব ভারী’ বৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। রবিবার সকাল দশটা নাগাদ ভারী বৃষ্টির অনুমানের কারণে লক্ষদ্বীপের আগাট্টি বিমানবন্দরে যাওয়ার সমস্ত নির্ধারিত ফ্লাইট স্থগিত করা হয়েছিল। বিমান বাহিনী উপদ্বীপ অঞ্চলে ১৬ পরিবহন বিমান এবং ১৮ টি হেলিকপ্টার প্রস্তুত রেখেছে। আইএল-৭৬ বিমানটি ১২৮ জন কর্মী এবং ১১ টন কার্গো নিয়ে ভাটিন্ডা থেকে জামনগরে পৌঁছেছে।

এটি ২০২১ সালের প্রথম ঘূর্ণিঝড় ঝড়, মায়ানমার এর নাম দিয়েছে ‘তাউকত’ , যার অর্থ ‘গরম জলবায়ুতে পাওয়া টিকটিকি ‘। এই ঝড়টি কারণে লক্ষদ্বীপ, কেরল, কর্ণাটক এবং তামিলনাড়ুতে মহারাষ্ট্রে ভারী বৃষ্টিপাত হচ্ছে।ইতিমধ্যেই লক্ষদ্বীপ, কেরল, কর্ণাটক ও তামিলনাড়ু উপকূলীয় অঞ্চল থেকে জেলেদের সমুদ্রে যেতে বাধা দেওয়া হয়েছে।