কেন্দ্র চাইছে মানুষ মারা যাক! রেমেডিনিসিভ নিয়ে মোদি সরকারের নয়া নীতিতে তোপ দিল্লি হাইকোর্টের

95
কেন্দ্র চাইছে মানুষ মারা যাক! রেমেডিনিসিভ নিয়ে মোদি সরকারের নয়া নীতিতে তোপ দিল্লি হাইকোর্টের 1

নিউজ ডেস্ক: ‘কেন্দ্র চাইছে মানুষ মরে যাক’ রেমডেনিসিভির নিয়ে কেন্দ্রের নতুন প্রটোকলের প্রতিক্রিয়া দিতে গিয়ে এইভাবেই কেন্দ্রকে তোপ দেগেছে দিল্লি হাইকোর্ট। দিল্লি হাইকোর্টের বিচারপতি প্রতিভা সিং কেন্দ্রকে তোপ দেগে বলেছেন, ‘এটা সম্পূর্ণ ভুল’। বুদ্ধির প্রয়োগ নিয়ে তিনি কটাক্ষ করে তিনি বলেন, অক্সিজেন লাগছে না কিন্তু খারাপ অবস্থায় থাকা মানুষেরা রেমডেসিভির পাবেন না। দেখা যাচ্ছে কেন্দ্র চায় মানুষের মৃত্যু হোক।‘ বিচারপতি আরও বলেছেন, ওষুধের অপ্রতুলতা ঢাকতে কেন্দ্র প্রটোকলের পরিবর্তন করেছে। বিষয়টিকে তিনি অব্যবস্থা বলে বর্ণনা করেছেন।

পাশাপাশি পূর্ব দিল্লির বিজেপি সাংসদ গৌতম গম্ভীরের ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন আদালত। পূর্ব দিল্লির সাংসদ নিজের সংসদীয় এলাকায় করোনার প্রতিরোধের ওষুধ বিলি করছিলেন, যা নিয়ে প্রশ্ন তুলে দিল্লি হাইকোর্টে মামলা দায়ের হয়। সেই মামলায় বিচারপতি প্রশ্ন করেন, গৌতম গম্ভীরের কি কোনও ওষুধের লাইসেন্স আছে? কীভাবে কোনও ব্যক্তি বেশি মাত্রায় ওষুধ সংগ্রহ করতে পারেন? শুধু দিল্লি হাইকোর্টই নয়, দিল্লির অন্য এলাকার মানুষেরা যখন ওষুধ পাচ্ছেন না, সেই সময় পূর্ব দিল্লিতে ওষুধ বিলি করা হচ্ছে, সে নিয়ে অনেকেই প্রশ্ন তুলেছেন।

কেন্দ্র চাইছে মানুষ মারা যাক! রেমেডিনিসিভ নিয়ে মোদি সরকারের নয়া নীতিতে তোপ দিল্লি হাইকোর্টের 2

বুধবার দিল্লি হাইকোর্টে এক আইনজীবীর আবেদনে শুনানি হয়। ওই আইনজীবী করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন। তাঁর ছয় ডোজ রেমডেসিভিরের প্রয়োজন থাকলেও তিনি পেয়েছিলেন তিনটি ডোজ। উল্লেখ্য, রেমডেনিসিভির নিয়ে কেন্দ্রের নতুন প্রটোকলে বলা হয়েছে, এই ওষুধ তখনই তাঁদেরই দেওয়া যাবে, যাঁরা অক্সিজেন সাপোর্টে থাকবেন।

প্রসঙ্গত, কেবল দিল্লি হাইকোর্টই নয়, সুপ্রিম কোর্টও কেন্দ্রকে কড়া বার্তা দিয়েছে করোনা পরিস্থিতি ও ভ্যাকসিনের মূল্য প্রসঙ্গ নিয়ে। দুদিন আগেই অক্সিজেন সঙ্কট ও করোনা পরিস্থিতি নিয়ে এক মামলার শুনানিতে সুপ্রিম কোর্ট স্পষ্ট জানিয়েছে, মানুষের প্রাণ বাঁচানোর জন্য দরকার মনে করলে আদালত হস্তক্ষেপ করবেই। সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি ডি ওয়াই চন্দ্রচূড় জানান, ‘এটা জাতীয় বিপর্যয়। এখন রাজনীতির কাজিয়ার সময় নয়। এখন সকলের উচিৎ দেশের পাশে দাঁড়ানো। পাশাপাশি, করোনা ভ্যাকসিনের ভিন্ন দাম নিয়েও কেন্দ্রের জবাব তলব করে শীর্ষ আদালত। এদিন বিচারপতি বলেন, ‘এখন জাতীয় বিপর্যয়, আদালত নীরব দর্শক হয়ে থাকতে পারে না। মানুষের জীবন বাঁচানোই আদালতের অগ্রাধিকার। আদালত যখনই মনে করবে, তখনই হস্তক্ষেপ করবে।’ সর্বোচ্চ আদালত এ-ও মনে করেছে, ‘হাইকোর্টগুলিরও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে।’

সেইসঙ্গে করোনা ভ্যাকসিনের ভিন্ন দাম প্রসঙ্গে এদিন অসন্তোষ প্রকাশ করে সুপ্রিম কোর্ট। ‘করোনা ভ্যাকসিনের কেন আলাদা দাম? কেন্দ্রের কাছে সেই জবাব তলব করে শীর্ষ আদালত। পাশাপাশি, করোনা মোকাবিলা নিয়ে কেন্দ্রের পরিকল্পনাও জানতে চায় শীর্ষ আদালত। ‘ভ্যাকসিনেশনই কি করোনা মোকাবিলার একমাত্র উপায়? ‘সঙ্কট মোকাবিলায় কেন্দ্রের জাতীয় পরিকল্পনা কী?’ সলিসিটর জেনারেলের কাছে জানতে চায় সুপ্রিম কোর্ট। “এখন জাতীয় সঙ্কট, কোর্ট রাজনৈতিক তরজার জায়গা নয়। আমাদের সকলকে দেশকে সাহায্য করা উচিৎ।“ একথাও স্পষ্ট করে জানিয়ে দেয় এদিন সুপ্রিম কোর্ট।

Previous articleজেনে নিন আজকের রাশিফল
Next article১ মে-র বদলে ৩০ এপ্রিল শুক্রবার প্রার্থী-এজেন্টদের নিয়ে দুপুরেই ভার্চুয়াল বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী