পুলিশি হেফাজতে থাকাকালীন মৃত্যু নাবালকের, রণক্ষেত্র মল্লারপুর! বিজেপির ডাকে শনিবার ১২ ঘন্টার বনধ এলাকায়

298
Advertisement

ওয়েব ডেস্ক : মোবাইল চুরির অভিযোগে গত বৃহস্পতিবারই এক নাবালককে গ্রেফতার করেছিল পুলিশ। শুক্রবার পুলিশি হেফাজতে থাকাকালীন মৃত্যু হয় নাবালকের। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে ইতিমধ্যেই রণক্ষেত্রের চেহারা নিয়েছে বীরভূমের মল্লারপুর। ঘটনায় নাবালিকার পরিবারের দাবি, গ্রেফতার করার পর থানায় নিয়ে গিয়ে নাবালককে পিটিয়ে খুন করেছে পুলিশ। এদিকে এই ঘটনার প্রতিবাদে ইতিমধ্যেই মাঠে নেমেছে বিজেপি। তাদের দাবি, মৃত ওই নাবালকের পরিবার বিজেপি সমর্থক। সেই কারণেই ওই পরিবারের নাবালক ছেলের বিরুদ্ধে মিথ্যে চুরির মামলা দিয়ে গ্রেফতার করে পুলিশ। এই ঘটিনায়ভঅভিযুক্ত পুলিশকর্মীদের শাস্তির দাবিতে শুক্রবার রাত ৯ টায় মল্লারপুর থানা ঘেরাওয়ের ডাক দিয়েছে বিজেপি। জানা গিয়েছে, এদিন রাতেই মল্লারপুরে যাবেন বিজেপির যুব মোর্চার সভাপতি সৌমিত্র খাঁ। এই ঘটনায় অবশ্য পুলিশের দাবি, বৃহস্পতিবার রাতে শৌচাগারে আত্মঘাতী হয়েছেন ওই নাবালক।

Advertisement

এদিকে এই ঘটনায় নিহত কিশোরের পরিবারের দাবি, বৃহস্পতিবার মোবাইল ফোন চুরির অভিযোগে ১৫ বছরের ওই নাবালককে গ্রেফতার করে নিয়ে যায় পুলিশ। শুক্রবার সকালে নাবালকের মৃত্যুর খবর পরিবারকে জানানো হয়েছে। এদিকে এই ঘটনা প্রকাশ্যে আসতেই গোটা এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। সকাল থেকেই টায়ার জ্বালিয়ে ৬০ নম্বর জাতীয় সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন বিজেপি কর্মীরা। এর জেরে ব্যাহত হয় যানচলাচল।

Advertisement
Advertisement

যদিও এই ঘটনায় পুলিশের সাফাই, রাতে শৌচাগারে যায় কিশোর। কিন্তু বেশ কিছুক্ষণ কেটে গেলেও ওই কিশোর বেরিয়ে না আসায় পুলিশকর্মীরা শৌচাগারে গিয়ে দেখেন, গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মঘাতী হয়েছে সে। এই ঘটনায় ইতিমধ্যে রামপুরহাট আদালতে ম্যাজিস্ট্রেট পর্যায়ের তদন্তের আবেদন জানিয়েছে বীরভূম পুলিশ। পাশাপাশি ঘটনার তদন্তের আশ্বাস দিয়েছেন পুলিশ সুপার শ্যাম সিং।

তবে পুলিশের এই ব্যাখ্যা একেবারেই মানতে নারাজ গেরুয়া শিবির। তাদের দাবি, বৃহস্পতিবার রাতে নাবালককে লক আপে পিটিয়ে খুন করেছে পুলিশকর্মীরা। সেকারণে এদিন রাত ৯ টায় থানা ঘেরাওয়ের ডাক দিয়েছে গেরুয়া শিবির। পাশাপাশি এই ঘটনার প্রতিবাদে ও অভিযুক্ত পুলিশকর্মীদের শাস্তির দাবিতে শনিবার বিজেপির তরফে মল্লারপুরে ১২ ঘণ্টার বনধ ডাকা হয়েছে।