শাহর সাথে বৈঠকে গলছে বরফের পাহাড়, খুব শীঘ্রই পদ্ম শিবিরে সক্রিয় হওয়ার সম্ভাবনা শোভন-বৈশাখীর

318
শাহর সাথে বৈঠকে গলছে বরফের পাহাড়, খুব শীঘ্রই পদ্ম শিবিরে সক্রিয় হওয়ার সম্ভাবনা শোভন-বৈশাখীর 1
শাহর সাথে বৈঠকে গলছে বরফের পাহাড়, খুব শীঘ্রই পদ্ম শিবিরে সক্রিয় হওয়ার সম্ভাবনা শোভন-বৈশাখীর 2

ওয়েব ডেস্ক : দীর্ঘদিন তৃণমূলের একাধিক পদ সামলানোর পর বেশ কিছু কারণে দলের প্রতি অভিমান জন্মেছিল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ‘স্নেহের কানন’এর। ফলে একসময় দল ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন শোভন চট্টোপাধ্যায়। এরপর একে একে ছাড়েন মন্ত্রীত্ব, মেয়র পদ। এরপর বছর খানেক রাজনীতি থেকে দূরে থাকার পর জল্পনা উঠেছিল শোভন চট্টোপাধ্যায় নাকি বিজেপিতে যোগ দিচ্ছেন। সব জল্পনার অবসান করে সত্যিই গেরুয়া শিবিরে যোগ দিয়েছিলেন শোভন-বৈশাখী। কিন্তু কিছুদিনের মধ্যেই দল থেকে দূরত্ব বজায় রাখতে শুরু করেন দুজনেই। তিনি গোঁসা করেছিলেন। ফলে তাঁর রাগ ভাঙাতে কেন্দ্রীয় নেতারা তাঁর বাড়িতেও গিয়েছিলেন।

তবে একাধিক কেন্দ্রীয় নেতাদের সাথে বৈঠকের পরও বরফ গলেনি শোভনবাবুর। মাঝে শোভনবাবুর তৃণমূলে যোগদান নিয়েও জল্পনা উঠেছিল রাজ্য রাজনীতিতে। অনেকেই মনে করেছিলেন দীর্ঘদিনের পুরনো দলের সাথে দূরত্ব ঘোচার কারণেই হয়তো পদ্মশিবির থেকে দূরত্ব বজায় রাখছে শোভন চট্টোপাধ্যায়। একাধিক জল্পনা কাটিয়ে গেরুয়া শিবিরে যোগদানের প্রায় ১৪ মাস পরে ফের শোভন চট্টোপাধ্যায়–বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় গেরুয়া শিবিরে সক্রিয় হয়ে উঠতে চলেছেন বলেই মনে করা হচ্ছে। তবে বিজেপির রাজ্য- কেন্দ্রীয় নেতারা দীর্ঘ একবছরে তাদের মানভঞ্জন করতে না পারলেও, একদিনের বৈঠকে তা করে দেখালেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ।

শাহর সাথে বৈঠকে গলছে বরফের পাহাড়, খুব শীঘ্রই পদ্ম শিবিরে সক্রিয় হওয়ার সম্ভাবনা শোভন-বৈশাখীর 3

তবে শাহ-র সাথে শোভন-বৈশাখীর বৈঠক যে আগে থেকেই তালিকাভুক্ত ছিল, তা কিন্তু নয়। বৃহস্পতিবার রাতে আচমকা কলকাতায় অমিত শাহের সঙ্গে বৈঠকে বসলেন শোভন–বৈশাখী। এদিকে কিছুদিন আগে পর্যন্ত রাজ্য বিজেপির বৈঠক এমনকি নরেন্দ্র মোদী, জেপি নাড্ডাদের একাধিক কর্মসূচিতে অনুপস্থিত ছিলেন শোভন-বৈশাখী। তবে এদিনের বৈঠকে শোভন-বৈশাখীর উপস্থিত থাকা বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করছেন রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা। ফলে মুখে কিছু না বলে বৈঠকের মাধ্যমে শোভন চট্টোপাধ্যায় যে বিজেপিতেই থাকছেন, সেই বার্তা দিলেন বলেই মনে করা হচ্ছে।

এদিকে দু’দিনের দক্ষিণবঙ্গ সফরে এসে শুক্রবার কলকাতায় বৈঠক করার কথা রয়েছে অমিত শাহের। সে অনুযায়ী বৃহস্পতিবার দিনভর বাঁকুড়ার কর্মসূচি সেরে সন্ধ্যায় কলকাতায় ফিরে আসেন তিনি। রাতে নিউটাউনের একটি হোটেলে থাকেন অমিত শাহ। জানা গিয়েছে, সেই হোটেলেই রাতে শোভন-বৈশাখীর সাথে আচমকা বৈঠকের ডাক দেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী। মনে করা হচ্ছে, এদিনের বৈঠকের জেরে এবার বিজেপির সাথে শোভনের দূরত্ব খুব শীঘ্রই ঘুচতে চলেছে।

বিজেপির তরফে জানানো হয়েছে, পদ্ম শিবিরের প্রতি দূরত্ব ঘোচাতে ব্যর্থ হয়ে শেষমেশ শোভন–বৈশাখীর সাথে অমিত শাহ এর বৈঠকে বসাতে বিশেষভাবে উদ্যোগী হয়েছিলেন দলের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক তথা পশ্চিমবঙ্গের পর্যবেক্ষক কৈলাস বিজয়বর্গীয় এবং কেন্দ্রীয় সম্পাদক তথা এই রাজ্যের সহকারী পর্যবেক্ষক অরবিন্দ মেনন। রাজনৈতিক মহলের অনুমান, বৃহস্পতিবার রাতে অমিত শাহের সঙ্গে বৈঠকের পর এবার খুব শীঘ্রই ময়দানে নেমে পড়তে চলেছেন শোভন-বৈশাখী।