ব্যাপক ছড়াচ্ছে ভাইরাস! করোনা থেকে সুস্থ হলে পরিবর্তন করুন নিজের ট্রুথব্রাশ

105
Advertisement

করোনা আক্রান্ত কোনও ব্যক্তির কাশি, হাঁচি, চেঁচানো, জোরে কথা বলা, হাসার সময় মুখ থেকে যে জলের ফোঁটা, থুতু বা লালা বেরিয়ে আসে, তার মাধ্যমে করোনা ছড়িয়ে পড়ে। করোনাভাইরাসকে বায়ুবাহিত বলা হচ্ছে, অর্থাৎ, যখনই কোনও আক্রান্ত ব্যক্তির মুখ থেকে ড্রপলেট বেরোচ্ছে, তা হাওয়ায় মিশে গিয়ে কিছুক্ষণ সেখানে জীবিত থাকে। ফলে সহজেই তা অন্য ব্যক্তির মধ্যেও সংক্রমিত হচ্ছে।

Advertisement

করোনা আক্রান্ত ব্যক্তির টুথব্রাশ ও টাঙ্গ ক্লিনার থেকেও এই ভাইরাস ছড়াতে পারে। কারণ এতে প্রচুর পরিমাণে সার্স-কোভ-২ ভাইরাসের উপস্থিত থাকতে পারে। তাই সেড়ে ওঠার পরও সেই সমস্ত বস্তু ব্যবহার করলে পুনরায় সংক্রমিত হওয়া বা অন্যের মধ্যে সংক্রমণ ঘটার সম্ভাবনা থেকেই যায়।

Advertisement
Advertisement

করোনা থেকে সুস্থ হলে পরিবর্তন করুন নিজের ট্রুথব্রাশ।এমনটাই বলছেন চিকিৎসকরা। তাঁদের মতে, কোনও রোগী করোনা থেকে মুক্ত হলেন, ব্রাশে এই মারণ রোগের উপসর্গ থেকে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। এর থেকে পরিবার কিংবা অন্য কারোর ছড়িয়ে পড়ারও সম্ভাবনা রয়েছে।

চিকিৎসকদের, আপনার চেনা জানা কেউ যদি কোভিড থেকে সুস্থ হন। তাহলে তাকে বলুন, দ্রুত নিজের ব্রাশ যেন পরিবর্তন করে। কারণ এর ফলে বাকিদেরও কোভিডে
সংক্রমিত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। খুব ভালো হয় যদি সে নিজের ব্রাশটি নষ্ট করে দেওয়া যায়।

পরিবারের কোনও সদস্য যদি করোনা আক্রান্ত হয়ে থাকেন, তা হলে তাঁরা শীঘ্র নিজের ব্রাশ ও টাঙ্গ ক্লিনার পাল্টে ফেলুন।