এবার বাংলায় সন্ধান মিললো ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের;আক্রান্ত চারজন রোগী

133
Advertisement

নিউজ ডেস্ক: কোভিড সংক্রমণ রোধে নাজেহাল ভারত। দৈনিক সংক্রমণ থেকে মৃত্যু, কোনও কিছুই নিয়ন্ত্রণে আনা যাচ্ছে না। এই পরিস্থিতিতে আতঙ্ক বাড়িয়েছে মিউকোরমাইকোসিস বা ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের সংক্রমণ।এতদিন মধ্যপ্রদেশ, মহারাষ্ট্র, উত্তরপ্রদেশ সহ দেশের অনেক রাজ্যে কালো ছত্রাকে আক্রান্ত রোগীদের সন্ধান পাওয়া গেছে। ইন্ডিয়ান কাউন্সিল ফর মেডিকেল রিসার্চ (আইসিএমআর) এর মতে, কালো ছত্রাক একটি বিরল রোগ যা শরীরে খুব দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে এবং অন্য কোনও রোগের আগে করোনার ভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে এটি বেশি দেখা যায়।যারা আক্রান্ত ছিলেন বা যাদের অনাক্রম্যতা খুব দুর্বল।

Advertisement

এবার উদ্বেগ আরও বাড়িয়ে মিউকোরমাইকোসিস হানা দিল বাংলায়। ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে আক্রান্ত চারজন রোগীর সন্ধান মিলল এই রাজ্যে। যদিও এঁদের মধ্যে দু’জন ঝাড়খণ্ড ও দু’জন বিহারের বাসিন্দা। চার রোগীর মধ্যে তিনজনই দিশা চক্ষু হাসপাতালে চিকিত্‍সাধীন। চতুর্থজন চিকিত্‍সা সংক্রান্ত নথি পাঠিয়েছেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে।

Advertisement
Advertisement

এটি একটি ছত্রাকের সংক্রমণ যা করোনার ভাইরাস থেকে সুস্থ হওয়ার পর হয়। কোভিড -১৯ টাস্ক ফোর্সের বিশেষজ্ঞরা বলেছেন যে, এটি তাদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে, যারা ইতিমধ্যে কিছু রোগে ভুগছেন এবং যাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দুর্বল। এই লোকেরা এই বিরুদ্ধে লড়াই করার ক্ষমতা কম রাখে।

করোনার ব্ল্যাক ফাঙ্গাস ইনফ্যাকশন কতটা মারাত্মক প্রমাণিত হচ্ছে ? সে ব্যাপারে চিকিৎসকদের বলেন, সঠিক সময়ে যদি এটির চিকিৎসা না করা হয়, তবে এতে দৃষ্টিশক্তির পাশাপাশি রোগীও মারা যেতে পারেন। এই সংক্রমণটি সাইনাসের মাধ্যমে নজর কেড়েছে। এর পরে এটি শরীরে ছড়িয়ে পড়ে। এটি প্রতিরোধের জন্য, সংক্রামিত চোখ বা চোয়ালের উপরের অংশটি অপসারণ করতে ডাক্তারকে শল্য চিকিৎসা করতে হবে।

স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের মতে, বাতাসে ছড়িয়ে পড়া জীবাণুগুলির সংস্পর্শের কারণে একজন ব্যক্তি ছত্রাকের সংক্রমণের শিকার হতে পারেন। কালো ছত্রাক রোগীর ত্বকেও মধ্যে দিয়েও প্রবেশ করতে পারে।

কালো ছত্রাক বা ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের লক্ষণ –

জ্বর,
মাথা ব্যথা,
কাশি বা নিঃশ্বাস নিতে কষ্ট হওয়া,
চোখে লালচে বা ব্যথা,
চোখে ব্যথা ,
চোখ ফুলে যাওয়া,
একপাশে মুখের ব্যথা, ফোলাভাব,
রক্ত বমি ।

কালো ছত্রাক এড়াতে ধুলাবালি অঞ্চলে মুখোশ পরুন।
মাটি, শ্যাওলা বা সারের মতো জিনিসের কাছে যাওয়ার সময় জুতা, গ্লাভস, ফুলহাতা শার্ট এবং ট্রাউজার্স পরুন। পরিচ্ছন্নতার বিশেষ যত্ন নিন। ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করুন, খুব কম পরিমাণে ইমিউনোমডুলেটিং ওষুধ বা স্টেরয়েড ব্যবহার করুন।