সংক্রমণ কিছুটা নিয়ন্ত্রণে এলেও করোনায় দৈনিক মৃত্যু বাড়াচ্ছে চিন্তা; শেষ ২৪ ঘন্টায় ৪ হাজারের বেশি মৃত্যু

33
Advertisement

নিউজ ডেস্ক: ভারত এখন একটি কঠিন সময়ের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে। তবে সংক্রমণ কিছুটা নিয়ন্ত্রিত এলেও প্রতিদিন আড়াই লক্ষেরও বেশি নতুন কেস আসছে এবং প্রতিদিনের মৃত্যুর সংখ্যাও চার হাজার ছাড়িয়েছে। স্বাস্থ্য মন্ত্রকের প্রকাশিত সর্বশেষ তথ্য অনুসারে, গত ২৪ ঘন্টায় ২৫৭,২৯৯ টি নতুন করোনার কেস এসেছে এবং ৪,১৯৪ জন আক্রান্ত মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন। একই সময়ে, ৩,৫৭,৬৩০ জন মানুষও করোনামুক্ত হয়েছেন। অর্থাৎ, ১ লক্ষ ৪ হাজার ৫২৫ টি অ্যাক্টিভ কেস কমেছে। এর আগে বৃহস্পতিবার ২.৩৯ লক্ষ নতুন কেস এসেছিল এবং ৪২০৯ জন আক্রান্ত মানুষ মারা গেছিলেন।

Advertisement

২১ শে মে অবধি দেশজুড়ে ১৯ কোটি ৩৩ লক্ষ ৭২ হাজার ৮১৯ করোনার ডোজ দেওয়া হয়েছে। আগের দিন ১৪ লাখ ৫৮ হাজার ৮৯৫ টি ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছিল। একই সময়ে, ৩২ কোটি ৬৪ লক্ষেরও বেশি করোনার পরীক্ষা করা হয়েছে। আগের দিন প্রায় ২০.৬৬ লক্ষ করোনার নমুনা পরীক্ষা নেওয়া হয়েছিল, যার পজিটিভিটি রেট ১২ শতাংশের বেশি।

Advertisement
Advertisement

আজ করোনার সর্বশেষ পরিস্থিতি-
মোট করোনার কেস – ২ কোটি ৬২ লক্ষ ৮৯ হাজার ২৯০।
মোট টেস্ট – ২ কোটি ৩০ লক্ষ ৭০ হাজার ৩৬৫ ।
মোট অ্যাক্টিভ কেস – ২৯ লক্ষ ২৩ হাজার ৪০০ ।
মোট মৃত্যু- ২ লাখ ৯৫ হাজার ৫২৫ জন।

দেশে করোনার মৃত্যুর হার ১.১২ শতাংশ এবং পুনরুদ্ধারের হার ৮৭ শতাংশেরও বেশি। অ্যাক্টিভ কেস ১২ শতাংশেরও কম হয়েছে। করোনার অ্যাক্টিভ কেসের দিক দিয়ে ভারত বিশ্বের দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে। সংক্রামিত মোট সংখ্যার দিক থেকেও ভারত দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে। আমেরিকা ও ব্রাজিলের পরে ভারতে সবচেয়ে বেশি মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে।

অন্যদিকে,বাংলায় করোনা সংক্রমন থামবার নাম নিচ্ছে না। কয়েকদিন ১৯ হাজারের আশপাশে থাকার পর ফের ২০ হাজার কাছাকাছি পৌঁছলো রাজ্যের দৈনিক করোনা সংক্রমণ।

রাজ্যের স্বাস্থ্য দফতরের বুলেটিন অনুযায়ী, গত একদিনে পশ্চিমবঙ্গে নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ১৯ হাজার ৮৪৭ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ১৫৯ জনের। রাজ্যে অ্যাকটিভ করোনা রোগীর সংখ্যা গিয়ে দাঁড়িয়েছে ১ লক্ষ ৩২ হাজার ১৮১ জনে।

গত একদিনে রাজ্যে করোনামুক্ত হয়েছেন ১৯ হাজার ১৭ জন। এই মুহূর্তে রাজ্যের পুনরুদ্ধারের হার গিয়ে দাঁড়িয়েছে ৮৮.১১ শতাংশে। তবে পজিটিভিটি রেট বেড়ে হয়ে গিয়েছে ১০. ৪৩ শতাংশ। গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে করোনা টেস্ট হয়েছে ৭৭ হাজার ৬২৭টি।