কোভিড যোদ্ধাদের পরিবর্তে ভ্যাকসিন তালিকায় শীর্ষে তৃণমূল বিধায়ক, তুঙ্গে তৃণমূল-বিজেপি তরজা, টিকা নিলেন না নেতা

252
কোভিড যোদ্ধাদের পরিবর্তে ভ্যাকসিন তালিকায় শীর্ষে তৃণমূল বিধায়ক, তুঙ্গে তৃণমূল-বিজেপি তরজা, টিকা নিলেন না নেতা 1

অশ্লেষা চৌধুরী: করোনার ভ্যাকসিন প্রাপকের তালিকায় প্রথমেই নাম রয়েছে তৃণমূল বিধায়কের, আর তা নিয়েই জেলা জুড়ে উঠেছে বিতর্কের ঝড় । কীভাবে তালিকায় নাম এল তা জানেন না বিধায়ক, আপাতত টিকা নিচ্ছেন না বলেই জানান বিধায়ক। এধরণের তুঘলকি রাজ মানা যায় না, কটাক্ষ বিজেপির। ঘটনাটি ঘটেছে আলিপুরদুয়ার জেলায়।

কোভিড যোদ্ধাদের পরিবর্তে ভ্যাকসিন তালিকায় শীর্ষে তৃণমূল বিধায়ক, তুঙ্গে তৃণমূল-বিজেপি তরজা, টিকা নিলেন না নেতা 2

আজ শনিবার থেকেই রাজ্যের প্রতিটি জেলায় শুরু হয় করোনা ভ্যাকসিন দেওয়ার প্রক্রিয়া। স্বাস্থ্য দপ্তরের নিয়ম অনুযায়ী প্রথমেই করোনা যোদ্ধা অর্থাৎ স্বাস্থ্যকর্মী ও স্বাস্থ্যের সাথে যুক্ত এমন ব্যক্তিদের এই ভ্যাকসিন দেওয়া হবে। অথচ সেই প্রাপকদের তালিকার প্রথমেই নাম রয়েছে আলিপুরদুয়ারের তৃণমূল বিধায়ক সৌরভ চক্রবর্তীর। এই নিয়েই বিতর্ক জেলা জুড়ে। তালিকা নিয়ে বিতর্ক শুরু হতেই সৌরভ অবশ্য জানিয়েছেন, আপাতত তিনি টিকা নিচ্ছেন না৷

কোভিড যোদ্ধাদের পরিবর্তে ভ্যাকসিন তালিকায় শীর্ষে তৃণমূল বিধায়ক, তুঙ্গে তৃণমূল-বিজেপি তরজা, টিকা নিলেন না নেতা 3

বিজেপির অভিযোগ, টিকাকরণরের ক্ষেত্রেও দলের লোকেদের সুবিধা পাইয়ে দিচ্ছে তৃণমূল সরকার। বিজেপির আলিপুরদুয়ার জেলা কমিটির সভাপতি গঙ্গাপ্রসাদ শর্মা বলেন, ‘বিধায়কের ডক্টরেট উপাধি থাকলেও তিনি চিকিৎসক নন। তা সত্ত্বেও মানুষের সঙ্গে নিশ্চয়ই প্রতারণা করে প্রথম টিকা পাওয়ার চেষ্টা করছিলেন বিধায়ক। সেই খবর জনসমক্ষে আসার পরই মানুষের প্রশ্নের মুখ পড়েছে তৃণমূল এবং সৌরভ।’

আলিপুরদুয়ার জেলা বিজেপির সাধারণ সম্পাদক সুমন কাঞ্জিলাল বলেন, ‘কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য বিধির নিয়ম ভেঙ্গে বিধায়ককে প্রথমে টিকা দেওয়ার পরিকল্পনা করা হয়েছে। প্রথমে ফ্রন্টলাইনে থেকে লড়াই করা করোনা যোদ্ধা স্বাস্থ্যকর্মীদের টিকা দেওয়ার কথা। এটা এক ধরনের তুঘলকি কাণ্ড। এটা মানা যায় না।’

তবে শুক্রবার রাতেই সৌরভ চক্রবর্তী জানিয়ে দেন, তিনি আপাতত টিকা নিচ্ছেন না৷ কিভাবে তার নাম তালিকাতে এল সে বিষয়েও তিনি কিছু জানেন না। তার সাফ বক্তব্য, আগে করোনা যোদ্ধা এবং সাধারন মানুষ এই ভ্যাকসিন নেবেন, তারপরই তিনি ভ্যাকসিন নেবেন। তিনি বলেন, ‘আমার যেহেতু পি.এইচডি আছে এবং জেলা হাসপাতালের রোগী কল্যাণ সমিতির চেয়ারম্যান, সেজন্য হয়তো জেলা স্বাস্থ্য বিভাগে কোনও ভুল বোঝাবুঝি হয়েছে।‘

এই বিষয়ে আলিপুরদুয়ার জেলা হাসপাতাল সুপার ডঃ চিন্ময় বর্মন বলেন, ‘আলিপুরদুয়ার জেলা সদর হাসপাতালের রোগী কল্যান সমিতির চেয়ারম্যান হিসেবে বিধায়ক সৌরভ চক্রবর্তীর নাম টিকা দেওয়ার তালিকায় উঠেছে এবং স্বাস্থ্য দপ্তরের দেওয়া নির্দেশিকা অনুযায়ী নামটি তালিকাতে রাখা হয়েছে।

তৃণমূলের শীর্ষ নেতৃত্বের তরফেও একই দাবী করা হয়েছে। দলের মুখপাত্র তাপস রায় বলেন, ‘মানুষ মাত্রই ভুল করেন। এমন ভাব করা হচ্ছে যেন বিজেপির নেতারা কোনও ভুল করেন না এবং তাঁরা সর্বদা ঠিক হন। সৌরভই নিজের নাম প্রত্যাহার করে নেওয়ায় ওখানেই বিষয়টিতে ইতি পড়ে গিয়েছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় স্পষ্টভাবে বলে দিয়েছেন, শুধুমাত্র স্বাস্থ্যকর্মীরাই টিকা পাবেন।’

মূলত চিকিৎসক, স্বাস্থ্যকর্মীদের মতো সামনের সারিতে থাকা করোনা যোদ্ধাদেরই অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে টিকা দেওয়া হবে৷ ইতি মধ্যেই ১০,৮০০জন স্বাস্থ্যকর্মীদের তালিকা তৈরি করে পাঠায় রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর৷ সেই তালিকা মেনেই প্রথম দিনে মোট ৭৫ জন স্বাস্থ্যকর্মীকে ভ্যাকসিন দেওয়া হবে। প্রথম দফায় যে সকল স্বাস্থ্যকর্মীরা ভ্যাকসিন নেবেন তারও একটি তালিকা তৈরি হয়। সেই তালিকাতেই এক নম্বরে রয়েছে সৌরভ চক্রবর্তীর নাম৷ তালিকায় বিধায়কের পাশাপাশি সৌরভকে মেডিক্যাল অফিসার হিসেবেও উল্লেখ করা হয়েছে৷ আর এই তালিকা সামনে আসতেই শুরু হয় বিতর্ক৷ অনিয়মের অভিযোগ তোলে বিজেপি ৷

তবে সেই অভিযোগ একেবারেই উড়িয়ে দিয়েছেন সৌরভ এবং এদিন আলিপুরদুয়ার জেলা হাসপাতালে টিকাকরণ প্রক্রিয়া খতিয়ে দেখতে তিনি উপস্থিত থাকলেও তিনি ভ্যাকসিন নেননি।

Previous articleদলত্যাগের দরজা যেন খোলাই রাখলেন মন্ত্রী! ফেসবুক লাইভে (Facebook) বিস্ফোরক রাজীব বললেন, এখনও ধৈর্য্যচ্যূত হইনি
Next articleহেঁসেলিয়ানা,পিঠেপুলি: সুজাতা বন্দ্যোপাধ্যায়