কৃষি আইন বিরোধী সভা থেকে ফিরেই মুর্শিদাবাদে খুন তৃনমূল কর্মী! গোষ্ঠি কোন্দল, বলল বিরোধীরা

167
কৃষি আইন বিরোধী সভা থেকে ফিরেই মুর্শিদাবাদে খুন তৃনমূল কর্মী! গোষ্ঠি কোন্দল, বলল বিরোধীরা 1

নিউজ ডেস্ক : সম্প্রতি পাশ হওয়া কেন্দ্রের কৃষি আইন নিয়ে সরগরম গোটা দেশ। দিল্লী সীমান্তে চলছে কৃষকদের অবস্থান। এ রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনের আগে সেই কৃষি আইনকে হাতিয়ার করেছে বিজেপি বিরোধী দলগুলি। তৃনমূলের পক্ষ থেকে কৃষি আইন বিরোধী সভা সমিতি মিছিল চলছে। এমনই এক কৃষি আইন বিরোধী সভায় যোগ দেওয়ার জন্য তাদের এক কর্মীকে খুন হতে হয়েছে বলে দাবি করেছে রাজ্যের শাসকদল। শুক্রবার রাতে মুর্শিদাবাদের কাসিমনগরে এই ঘটনা ঘটেছে বলে জানা গেছে। যদিও এই দাবি মানতে নারাজ খুন হওয়া যুবকের পরিবার।

জানা গেছে, মুর্শিদাবাদের কাসিমনগরের শংকরপুরের বাসিন্দা খুন হওয়া ওই যুবকের নাম সাদ্দাম মোমিন। ২৮ বছরের তৃনমূলকর্মী সাদ্দাম শুক্রবার বিকেলে নিজের এলাকাতেই দলের আয়োজিত একটি কৃষি আইনের বিরোধিতায় সভায় যোগ দিয়েছিল। তৃনমূলের অভিযোগ সভা শেষ হওয়ার পরে বাড়ি চলে যায় সাদ্দাম। এরপর রাতে এলাকার একটি চায়ের দোকানে ছিলেন তিনি। ইব্রাহিম মোমিন ও ইসব মোমিন নামে দুই যুবক গিয়েছিল সেখানে। সেখানেই সভায় যাওয়া নিয়ে ইব্রাহিম ও ইসবের সঙ্গে বচসা বাঁধে সাদ্দামের। অভিযোগ, সেই ঘটনার জেরেই এলোপাথাড়ি কোপানো হয় সাদ্দামকে। ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় তাঁর।

কৃষি আইন বিরোধী সভা থেকে ফিরেই মুর্শিদাবাদে খুন তৃনমূল কর্মী! গোষ্ঠি কোন্দল, বলল বিরোধীরা 2

তৃণমূলের অভিযোগ, কৃষি আইনের বিরোধিতায় সরব হওয়ার কারণেই দুষ্কৃতীদের হাতে প্রাণ যায় ওই যুবকের। ইতিমধ্যেই দুই অভিযুক্তের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে দলের তরফে। যদিও শাসকদলের এই অভিযোগ মানতে নারাজ মৃতের পরিবার। তাঁদের দাবি, এই খুনের পিছনে রাজনীতির যোগ নেই। তাঁদের মতে মৃত এবং অভিযুক্ত উভয় পক্ষই শাসকদলের কর্মী। ঘটনার পেছনে ব্যক্তিগত রেষারেষি কাজ করেছে।

এলাকার বিরোধীদল গুলিও অভিযোগ করেছে এই ঘটনার পেছনে শাসকদলের অভ্যন্তরীণ গোষ্ঠী কোন্দল কাজ করেছে। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। ঠিক কী কারণে এই খুনের ঘটনা খতিয়ে দেখছে পুলিশ। এটি আদৌ রাজনৈতিক বিরোধিতা নাকি রাজনীতির বাইরে কিছু সবটাই খতিয়ে দেখা হচ্ছে।