দোকান তৈরি নিয়ে তৃণমূলের গোষ্ঠী সংঘর্ষ, উত্তপ্ত ডোমকল

125
Image Credit "PTI"

ওয়েব ডেস্ক : নির্বাচন যত এগিয়ে আসছে, শাসকদলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব তত বাড়ছে। শাসকদলের গোষ্ঠীর সংঘর্ষের জেরে রণক্ষেত্রের চেহারা নিল মুর্শিদাবাদের ডোমকল। ভর দুপুরে প্রকাশ্য রাস্তায় দাঁড়িয়ে গুলি ছুঁড়তে দেখা যায় এক তৃণমূল নেতাকে৷ ঘটনায় দুজন আহত হয়েছে। বর্তমানে গুরুতর জখম অবস্থায় দুজনেই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। রবিবার দুপুরের এই ঘটনা মূহুর্তে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে যায়৷ এরপর থেকেই এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় শোরগোল পড়তে শুরু করে। জানা গিয়েছে, এদিন দুপুরে যে ব্যক্তি গুলি চালান তিনি তৃণমূলের স্থানীয় বুথ সভাপতি আশাদুল শেখ। ঘটনাকে কেন্দ্র করে রবিবার রাত পর্যন্ত উত্তপ্ত ছিল গোটা এলাকা। তবে এই বিষয়ে এখনও পর্যন্ত মুখ খোলেননি স্থানীয় পুলিশ প্রশাসন।

আরও পড়ুন -  শ্যুটিং দেখতে হাতি আর হাতি দেখেই পগারপার কুশীলবরা

স্থানীয় সূত্রে খবর, লকডাউনের মধ্যেই রাস্তার ধারে দোকান তৈরি নিয়ে বেশ কিছুদিন যাবৎ স্থানীয় তৃণমূল নেতা আবুল হোসেনের গোষ্ঠীর সঙ্গে শাসকদলের অপর গোষ্ঠী আশাদুল শেখের লোকজনের মধ্যে অশান্তি চলছিল। এই ঘটনায় আবুল হোসেনের অভিযোগ, রবিবার দুপুরে আশাদুল ১৫ জন ছেলেকে নিয়ে এলাকায় ঢুকে তান্ডব শুরু করেন। এমনকি পিস্তল উঁচিয়ে রাস্তার মধ্যে চিৎকার করতে থাকেন তারা। এরপর আচমকা আবুলকে লক্ষ্য করে গুলি করেন। কিন্তু সেই গুলিটি আবুলের গায়ে লেগে বেরিয়ে যায়। এরপর গুলিবিদ্ধ হন আবুলের ছেলে জনি। এবিষয়ে আবুল হোসেন বলেন, “আশাদুল আমায় গুলি করতে চেয়েছিল। কিন্তু আমি পিস্তল চেপে ধরে সরে যাই। আমার জামা ছুঁয়ে গুলি চলে যায়। সেই বুলেটটি আমার ছেলের লাগে। অনেকবার গুলি ছোড়া হয়েছে। এমনকী ওঁরা বোম নিয়েও এসেছিলেন।” ঘটনার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। ঘটনার পর থেকেই এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

যদিও এবিষয়ে এখনও পর্যন্ত অভিযুক্ত আশাদুল শেখের প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি৷ তবে এবিষয়ে জেলা তৃণমূল নেতৃত্ব জানিয়েছে, আইন আইনের পথেই চলবে। পুলিশ উপযুক্ত পদক্ষেপ করবে। এবিষয়ে তৃণমূল জেলা সভাপতি তথা সাংসদ আবু তাহের বলেন, “এই ধরনের কাজ বরদাস্ত করা হবে না। পুলিশ ব্যবস্থা নেবে। দলের তরফেও শৃঙ্খলাজনিত পদক্ষেপ করা হবে।” এদিকে এই ঘটনায় শাসকদলের যোগ স্বীকার করতে নারাজ তৃণমূল জেলা কো-অর্ডিনেটর অশোক দাস। তাঁর দাবি এই ঘটনা অবশ্যই গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব। তবে এর সাথে দলের অন্যান্যদের কোনও যোগ নেই। এই ঘটনায় ডোমকল পুরসভার চেয়ারম্যান জফিকুল ইসলাম আবার বলেছেন, “সরকারি জমির উপর ফুটপাতে অবৈধভাবে দোকান তৈরি নিয়ে দুই গোষ্ঠীর মধ্যে বিবাদ চলছিল।” তবে এদিনের ঘটনা প্রকাশ্যে আসতেই মাঠে নেমে পড়েছেন বিজেপি। এই ঘটনার তীব্র নিন্দা করে বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন, এই রাজ্যে কোনও আইন নেই৷ তা আরও একবার এদিনের ঘটনায় প্রমাণিত হল।

দোকান তৈরি নিয়ে তৃণমূলের গোষ্ঠী সংঘর্ষ, উত্তপ্ত ডোমকল 1