শত্রু দেশের আক্রমণে নয়, নিজের দেশেই নিরাপত্তার অভাবে প্রাণ হারালেন দুজন সেনা জওয়ান

271
শত্রু দেশের আক্রমণে নয়, নিজের দেশেই নিরাপত্তার অভাবে প্রাণ হারালেন দুজন সেনা জওয়ান 1

অশ্লেষা চৌধুরী: এবারে আর পাকিস্তান বা চীনের আক্রমণে নয়, নিজের দেশেই নিরাপত্তার অভাবে প্রাণ হারালেন দুই সেনা জওয়ান। সেনা ছাউনির দেওয়াল ভেঙে মৃত্যু হল দুই সেনা জওয়ানের। মর্মান্তিক এই দুর্ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার জম্মু কাশ্মীরের কাঠুয়া জেলার মাছেডীতে এই ঘটে।
জানা গিয়েছে, শুক্রবার রাতে আচমকাই ভেঙে পড়ে ব্যারাকের দেওয়াল। তার তলায় চাপা পড়ে যান জওয়ানরা। এই ঘটনায় আরও এক জওয়ান গুরুতর আহত হয়েছেন। এই সেনা ছাউনি বিল্লাওয়ার পুলিশ স্টেশনের খুব কাছেই অবস্থিত ।

সেনা সূত্রে খবর ওই দুই জওয়ান ব্যারাকের দেওয়ালের ধারে কিছু কাজ করছিলেন। তখনই দেওয়ালটি ধসে পড়ে। গুরুতর আহত হন তিনজন। দ্রুত আহতদের এস ডি এইচ বিল্লাওয়ারে নিয়ে যাওয়া হয়। হাসপাতালে দুই সেনা জওয়ানকে মৃ়ত বলে ঘোষণা করা হয়। অপর একজন সেনা গুরুতর আহত অবস্থায় চিকিৎসারত।

শত্রু দেশের আক্রমণে নয়, নিজের দেশেই নিরাপত্তার অভাবে প্রাণ হারালেন দুজন সেনা জওয়ান 2

মৃত দুই জওয়ানের নাম পরিচয় প্রকাশ করা হয়েছে। জানা গিয়েছে একজনের নাম সুবেদার এস এন সিং, বয়স ৪৫ বছর। তিনি হরিয়ানার সোনিপতের বাসিন্দা ছিলেন। আরেকজন ৩৯ বছরের নায়েক পারভেজ কুমার। তিনি সাম্বার বাসিন্দা ছিলেন। আর যিনি আহত হয়েছেন, তাঁর নাম সিপাই মঙ্গল সিং। বছর ৪৬ বছর। মঙ্গল বাবু হরিয়ানার পানিপথের বাসিন্দা। অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাঁকে এম এইচ পাঠানকোটে স্থানান্তরিত করা হয়েছে। পুলিশের একটি দল দেওয়াল ভেঙ্গে পড়ার ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে এবং উচ্চ পদস্থ আধিকারিকেরাও এই বিষয়ে রিপোর্ট তলব করেছেন।

তবে, এই ঘটনা চোখ আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিচ্ছে নিজেদের দেশেই সেনারা নিরাপদ নয়। যে সেনারা সীমান্ত রক্ষায় জীবনপাত করছেন, তাঁরা নিজেদের দেশে সুরক্ষিত নয়। প্রধানমন্ত্রী মন কী বাত অনুষ্ঠানে কিছুদিন আগেও সেনা জওয়ানদের জন্য প্রদীপ জ্বালানোর আহ্বান জানিয়েছিলেন। তাঁর বক্তব্য ছিল, ‘ভারতীয় জওয়ানদের বীরত্বের সঙ্গে কোনও কিছুরই তুলনা হয় না। তাঁদের জন্য দীপাবলির একটি প্রদীপ উৎসর্গ করি।‘ দেশের সেনাবাহিনীর বীরত্বের প্রসংশার কথা বার বার শোনা যায় প্রধানমন্ত্রীর কন্ঠে, গোটা দেশ গর্বিত হন সেনা বাহিনীর সাহসিকতায়। অথচ নিজের ঘরেই যে সেনাদের নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। যেখানে তাঁদের ব্যারাক বা সেনা ছাউনি, সেটির দেওয়াল আচমকা ভেঙ্গে দুজন বীর সেনাকে আমরা হারালাম; কী এমন হল যে, পুরো দেওয়ালটাই ভূকম্পন বা বিস্ফোরণ ছাড়াই ভেঙ্গে পড়ল!

কতটা কঠিন পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে নিজেদের সবটুকু দিয়ে তাঁরা দেশ রক্ষা করছেন, অথচ তাঁদের নিজেদেরই সুরক্ষা যে প্রশ্নের মুখে। এমতাবস্থায় তাঁদের উদ্দেশ্যে প্রদীপ জ্বালিয়ে কী তাঁদের সুরক্ষার মান নিশ্চিত করা আদৌ সম্ভব! প্রতিবেশী শ্ত্রু দেশের আক্রমণ থেকে তাঁরা সাহসিকতার সাথে লড়াই করতে সক্ষম, তা নতুন করে বলার নেই, আমরা সকল দেশবাসী তাঁদের জন্য গর্বিত। কিন্তু নিজের দেশেই যদি দেওয়াল চাপা পড়ে বেঘোরে প্রাণ দিতে হয়, তবে সে দেশের সরকারের তাঁদের প্রতি যে দায়িত্ব পালন করার কথা, সেটা নিয়েও যথেষ্ট সন্দেহ থেকে যাচ্ছে না কী!