আনলক-৪ পর্বে কোথায় কোন শর্তে ছাড় আর কোথায় নিষেধাজ্ঞা? বিস্তারিত জানুন

119

নিজস্ব সংবাদদাতা: ১লা সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হচ্ছে আনলক-৪ । চতুর্থ পর্বের এই খোলা ভারতে চালু হতে চলেছে কিছু কিছু ক্ষেত্র। এই পর্বে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, ক্রীড়াঙ্গন, বিনোদন জগতে কিছু শর্ত স্বাপেক্ষে প্রত্যাহৃত চলেছে নিষেধাজ্ঞা আবার কোনও কোনও ক্ষেত্রে বহাল থাকছে আগের মতই নিষেধাজ্ঞা। কী কী শর্তে কোথায় কোথায় নিষেধাজ্ঞা উঠছে অথবা বহাল থাকছে সেগুলো জেনে নেওয়া যাক। মনে রাখতে হবে যে সমস্ত নিষেধাজ্ঞাগুলি প্রত্যাহার হচ্ছে তার অধিকাংশই হচ্ছে আনলক চতুর্থ পর্ব শুরু হওয়ার ২১ দিনের মাথায় অর্থাৎ ২১শে সেপ্টেম্বর থেকে।

উঠল খেলায় নিষেধাজ্ঞা
ভারতের মাটিতে খেলাধুলোর আসর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নিল কেন্দ্রীয় সরকার। করোনা মহামারির জন্য সারা দেশে দীর্ঘ ৬ মাস সমস্ত খেলাধুলো বন্ধ ছিল। শেষমেশ ২১ সেপ্টেম্বর থেকে খেলাধুলো শুরুর অনুমতি দেওয়া হল সরকারি তরফে।
প্রাথমিকভাবে তৃতীয় পর্বের আনলকে খেলাধুলোর আঙিনা থেকে বিধি-নিষেধ শিথিল করার কথা জানিয়ে ছিল স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক। যদিও স্টেডিয়াম ও স্পোর্টস সেন্টারগুলি চালু করা এবং খেলাধুলোর প্রস্তুতি সংক্রান্ত কিছু বিষয়ে ছাড় দেওয়া ছাড়া পুরোদস্তুর ক্রীড়াযজ্ঞের অনুমতি দেওয়া হয়নি এতদিন।  ৩১ অগস্ট পর্যন্ত খেলাধুলোর আসরের উপর প্রতিবন্ধকতা জারি করেছিল সরকার। ২১ সেপ্টেম্বর থেকে সব প্রতিবন্ধকতা সরিয়ে নেওয়ার কথা জিনিয়ে দেওয়া হল স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের নির্দেশিকায়।

তবে শর্ত থাকল জমায়েতের উপর। খেলাধুলোর আসরে ১০০ জনের বেশি মানুষের জমায়েত নিষিদ্ধ বলে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। তাছাড়া মানতে হবে সোশ্যাল ডিসট্যান্সিং। ব্যবহার করতে হবে মাস্ক-গ্লাভস। স্যানিটাইজারের ব্যবস্থা রাখতে হবে সর্বত্র।
গত মার্চ থেকেই খেলাধুলোর সংক্রান্ত জমায়েতের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিল সরকার। আইএসএলের ফাইনাল-সহ কয়েকটি ম্যাচ যে কারণে খালি গ্যালারিতে আয়োজন করা হয়। লকডাউনের জন্যই আইপিএল পিছিয়ে দিতে বাধ্য হয় বিসিসিআই। আমিরশাহিতে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়র লিগ সরিয়ে নিয়ে যেতে হয় করোনা সংক্রান্ত সরকারি নিষেধাজ্ঞার জন্যই।

আরও পড়ুন -  ক্ষমতার জোরে খালের বুকেই বাড়ি, প্রকৃতির প্রতিশোধ! দাসপুরে খালই টেনে নিল কোটি টাকার দালান, উল্লসিত স্থানীয় মানুষ

শিক্ষায় বহাল নিষেধাজ্ঞা কিন্তু কিছু ছাড় কন্টেনমেন্ট জোনগুলির বাইরে স্বাভাবিক জীবনযাত্রা ফিরিয়ে আনা ‘আনলক ৪’ পর্ব ঘোষাণা করে বেশ কিছু নিষেধাজ্ঞা শিথিল করলেও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের তালিকায় স্থান পায়নি শিক্ষাকেন্দ্র।  এ দিন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক প্রকাশিত বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, ১ সেপ্টেম্বর থেকে বলবৎ হতে চলা ‘আনলক ৪’ পর্বেও স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়-সহ সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আপাতত বন্ধ থাকবে। শিক্ষা ব্যবস্থা চালু রাখতে অনলাইন পঠনপাঠনে গুরুত্ব আরোপ করা হয়েছে।

বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল প্রশাসনের সঙ্গে সবিস্তারে আলোচনার পরে সিদ্ধান্তের জেরে আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সমস্ত স্কুল, কলেজ, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও কোচিং সেন্টারে নিয়মিত ক্লাস এখন বন্ধ থাকবে। তবে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রকের নির্দেশাবলী সাপেক্ষে ২১ সেপ্টেম্বর থেকে শিক্ষাকেন্দ্রে কর্মীদের হাজিরার ক্ষেত্রে কিছু কিছু ছাড় দেওয়া হয়েছে।
১) রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে অনলাইন ক্লাস পরিচালনা এবং টেলি কাউন্সেলিং সংক্রান্ত কাজের জন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলিতে একসঙ্গে ৫০% পর্যন্ত কর্মীর উপস্থিতি অনুমোদন করা হয়েছে।
২) কন্টেনমেন্ট এলাকার বাইরে নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্ররা শিক্ষকদের থেকে পরামর্শ নিতে স্বেচ্ছায় স্কুলে হাজিরা দিতে পারবে। তবে তার জন্য অভিভাবকের সই করা লিখিত অনুমতি আবশ্যিক করা হয়েছে।

আরও পড়ুন -  খড়গপুর মেদিনীপুরে রাতভর বৃষ্টি, বৃষ্টি ঘাটাল চন্দ্রকোনা ঝাড়গ্রামে, সকালেও ঝাঁপালো আকাশ, ফের বর্ষা এল দক্ষিনবঙ্গে

৩) ন্যাশনাল স্কিল ট্রেনিং ইনস্টিটিউশন (এনএসটিআই) এবং আইটিআইগুলিতে স্কিল ও আঁত্রেপ্রেনারশিপ ট্রেনিং চালু থাকবে। একই ভাবে প্রশিক্ষণ চলবে ন্যাশনাল স্কিল ডেভেলপমেন্ট কর্পোরেশন এবং রাজ্য স্কিল ডেভেলপমেন্ট মিশন অথবা কেন্দ্রীয় ও রাজ্য সরকারি দফতর অনুমোদিত প্রতিষ্ঠানগুলিতে। এই পর্বে ছাড় দেওয়া হয়েছে ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট ফর আঁত্রেপ্রেনারশিপ অ্যান্ড স্মল বিজনেস ডেভেলপমেন্ট (NIESBUD), ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ আঁত্রেপ্রেনারশিপ (IIE) এবং তাদের প্রশিক্ষণ সংস্থাগুলিকেও।

এ ছাড়াও ছাড় দেওয়া হয়েছে উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোয় নথিভুক্ত রিসার্চ স্কলার, প্রযুক্তি ও পেশাগত প্রোগ্রামের অন্তর্ভুক্ত স্নাতকোত্তর পড়ুয়াদের, যাঁদের ক্ষেত্রে পরীক্ষাগার ব্যবহার ও গবেষণামূলক কাজ জরুরি। তবে তার জন্য সংশ্লিষ্ট এলাকার কোভিড পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের অনুমতি উচ্চ শিক্ষা দফতরের অনুমোদন আবশ্যিক বলে জানানো হয়েছে।

আরও পড়ুন -  নিহত দলীয় কর্মীর বাড়িতে ঢুকতে বাধা, পূর্ব মেদিনীপুরে সায়ন্তন বসুর গাড়ি আটকালো পুলিশ

বন্ধ থাকছে বিনোদন কিন্তু খোলা যাবে মুক্তমঞ্চের নাটক

প্রকাশিত বিবৃতি অনুযায়ী, সিনেমা হল, সুইমিং পুল, বিনোদন পার্ক, নাট্যমঞ্চ। তবে নতুন নির্দেশিকায় নিষেধাজ্ঞা আরোপের আওতা থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে মুক্তমঞ্চগুলিকে। যদিও সিনেমা হল ও থিয়েটার প্রদর্শনের প্রেক্ষাগৃহের উপরে বহাল থাকছে নিষেধাজ্ঞার ঘেরাটোপ। ৩০ সেপ্টেম্বর সিনেমা হল, সুইমিং পুল, বিনোদন পার্ক, থিয়েটার বন্ধ থাকবে। তবে ২১ সেপ্টেম্বরের পর থেকে ওপেন এয়ার থিয়েটার খোলার ক্ষেত্রে অনুমতি দেওয়া হবে।

যাবতীয় স্বাস্থ্যবিধি মেনে ২১ সেপ্টেম্বর থেকে সামাজিক (বিয়ে) বা শিক্ষামূলক বা খেলাধূলা বা সাংস্কৃতিক বা ধর্মীয় বা রাজনৈতিক জমায়েতে ১০০ জন থাকতে পারবেন। তার আগে ২০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বিয়ের অনুষ্ঠানে সর্বাধিক ৫০ জন এবং শেষকৃত্যে সর্বাধিক ২০ জন থাকতে পারবেন।  স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের অনুমতি ছাড়া যে কোনও আন্তর্জাতিক বিমানযাত্রার উপরে ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত নিষেধাজ্ঞা বহাল থাকছে। 

আনলক-৪ পর্বে কোথায় কোন শর্তে ছাড় আর কোথায় নিষেধাজ্ঞা? বিস্তারিত জানুন 1