জলকামানের জলে রাসায়নিক, দাবি বিজেপির! রক্তবমি করে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বিজেপি নেতা রাজু বন্দোপাধ্যায়

261
জলকামানের জলে রাসায়নিক, দাবি বিজেপির! রক্তবমি করে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বিজেপি নেতা রাজু বন্দোপাধ্যায় 1

ওয়েব ডেস্ক : বৃহস্পতিবার নবান্ন অভিযানে সকাল থেকেই রাস্তায় নেমেছে বিজেপি। সকাল থেকেই কলকাতা ও হাওড়ার বিভিন্ন এলাকায় বারংবার পুলিশের সাথে বিজেপি কর্মীদের খন্ডযুদ্ধের খবর প্রকাশ্যে এসেছে। এদিন হাওড়া-কলকাতার বিভিন্ন রাস্তায় বিক্ষোভরত বিজেপি কর্মী–সমর্থকদের আটকাতে একাধিকবার কাঁদানে গ্যাসের সেল ফাটায় পুলিশ। এমনকি জলকামানে রাসায়নিক ও রঙ মিশ্রিত জল ছোঁড়ার অভিযোগ উঠেছে পুলিশের বিরুদ্ধে। এই রাসায়নিক গায়ে ও মুখে পড়ে ইতিমধ্যেই গুরুতর অসুস্থ হলেন বিজেপি–র একাধিক নেতাকর্মীরা। তারা প্রত্যেকেই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। শুধু তাই নয়, এই মূহুর্তে গুরুতর অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বিজেপ নেতা রাজু বন্দোপাধ্যায়।

মিছিলের মাঝে এদিন আচমকা রক্তবমি শুরু হলে রাজু বন্দোপাধ্যায়কে দ্রুত মিছিল থেকে বাইপাসের ধারে অ্যাপোলো হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এই মূহুর্তে তিনি হাসপাতালেই চিকিৎসাধীন। ঘটনায় বিজেপির অভিযোগ, এদিন জলকামানে রাসায়নিক ও রঙ জলে মিশিয়ে এনেছিল পুলিশ। সেই রাসায়নিক মুখে গিয়ে শুরু হয় রক্তবমি। বিজেপি নেতা গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন। তবে ইতিমধ্যেই তাঁর চিকিৎসা শুরু হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। এদিনের মিছিলে একাধিক নেতা কর্মী আহত হন। এদিন নবান্ন অভিযানে যাওয়ার পথে সাঁতরাগাছিতে আহত হন বিজেপি সাংসদ জ্যোতির্ময় সিং মাহাতো। ঘটনায় তাঁর অভিযোগ, “পুলিশ, সিভিক ভলান্টিয়ারের পাশাপাশি কিছু গুন্ডা ইচ্ছাকৃতভাবে মিছিলের মাঝে এসে ইট–পাটকেল ছুঁড়েছে। আমাদের শান্তিপূর্ণ মিছিলে লাঠিচার্জ করেছে পুলিশ।”

তবে শুধুমাত্র রাজু বন্দোপাধ্যায় কিংবা জ্যোতির্ময় সিং মাহাতই নয়, একই সাথে এদিন বিজেপি–র মিছিলের ওপর পুলিশের রাসায়নিক মিশ্রিত জলকামান ও কাঁদানে গ্যাসের শেল ছোঁড়ায় স্বাভাবিকভাবেই জখম হয়েছেন কেন্দ্রীয় নেতা অরবিন্দ মেনন, বিজেপি–র যুব মোর্চার সহ সভাপতি তাপস ঘোষ, সায়ন্তন বসু প্রমুখ। এমনকী পুলিশি লাঠিচার্জের মুখে পড়েন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের ওপরও। এমনই গুরুতর অভিযোগ করেছেন রাজ্য বিজেপি সভাপতি। তবে এদিন পাল্টা পুলিশের তরফেও বিজেপি কর্মী সমর্থকদের উপরে অভিযোগ করা হয়। পুলিশের অভিযোগ, বৃহস্পতিবার বিজেপির নবান্ন অভিযানে আচমকা পুলিশকে লক্ষ্য করে বোমবাজি, ইট–পাটকেল ছোঁড়া হয়েছে। একই সাথে এদিন হাওড়া ময়দানে এক বিজেপি নেতার নিরাপত্তারক্ষীর কাছ থেকে আগ্নেয়াস্ত্র পাওয়া গিয়েছে বলেও অভিযোগ করে পুলিশকর্মীরা।

আরও পড়ুন -  পুর্ব মেদিনীপুরের গ্রামের খালে ডলফিন! উপচে পড়ল ভিড়

অন্যদিকে, এদিন বিজেপি সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায় পুলিশের উপর অভিযোগ করে বলেন, “পুলিশ আমাদের লোকজনের ওপর বেপরোয়াভাবে লাঠিচার্জ করছে। খিদিরপুরের দিক থেকে আমাদের মিছিল লক্ষ্য করে ইট ছোঁড়া হচ্ছে। এগুলি কি পুলিশ দেখতে পায় না?‌” তবে এদিনের বিশৃঙ্খল পরিস্থিতিতে স্বাভাবিকভাবেই ক্ষুব্ধ কৈলাস বিজয়বর্গীয়। তিনি বলেন, “আমরা গণতান্ত্রিকভাবে প্রতিবাদ জানাচ্ছি। তবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আমাদের শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভকে হিংসায় পরিণত করার চেষ্টা করছেন। শুধু পুলিশ নয়, তাদের পাশাপাশি তৃণমূলের গুন্ডারা আমাদের লক্ষ্য করে পাথর ছুঁড়েছে।”

জলকামানের জলে রাসায়নিক, দাবি বিজেপির! রক্তবমি করে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বিজেপি নেতা রাজু বন্দোপাধ্যায় 2