করোনার বিরুদ্ধে লড়াইতে কারা বেশি সক্ষম! গবেষণায় প্রকাশ চাঞ্চল্যকর তথ্য

157
করোনার বিরুদ্ধে লড়াইতে কারা বেশি সক্ষম! গবেষণায় প্রকাশ চাঞ্চল্যকর তথ্য 1

নিউজ ডেস্ক: গত বছর ডিসেম্বরে চিনের উহান প্রদেশে ছোট্ট এক অদৃশ্য ভাইরাসের উৎপত্তি হয়। তারপর ধীরে ধীরে সেই ভাইরাস বিশ্ব জুড়ে তার ধ্বংসলীলা দেখাতে শুরু করে। লক্ষ লক্ষ মানুষের প্রাণ কেড়ে নিয়েছে, এখনও নিচ্ছে। সেইসাথে এই মারণ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৩ কোটিরও বেশি মানুষ। একেক দিন একেক রকম উপসর্গ সামনে আসছে করোনার। ভ্যাকসিনের আশায় বসে বিশ্ববাসী। একে নিয়ে চলছে নানান গবেষণা। উঠে আসছে একে ঘিরে নানা প্রশ্ন। যেমন- মহিলারাই কি বেশি করোনা ভাইরাসের শিকার, না এক্ষেত্রে পুরুষদের হার বেশি? বিবাহিত পুরুষ, নাকি বয়স্ক, কাদের সংক্রমিত হওয়ার বেশি সম্ভাবনা? এসব নিয়ে বিস্তর গবেষণা, পরীক্ষা-নিরীক্ষা হয়েছে।

এবার নতুন এক গবেষণায় উঠে এল আরও এক নতুন তথ্য। জানা গিয়েছে, মহিলাদের তুলনায় পুরুষজাতির শরীরেই নাকি বেশি পরিমাণ কোভিড-১৯ অ্যান্টিবডি উৎপন্ন হচ্ছে। নতুন এই গবেষণার কথা প্রকাশিত হয়েছে ইউরোপীয় জার্নাল ‘ইমিউনোলজি’-তে। পর্তুগিজ গবেষকদের কথায়, করোনা থেকে সুস্থ হওয়ার পর প্রায় সাত মাস পর্যন্ত ৯০ শতাংশের শরীরে অ্যান্টিবডির অস্তিত্ব পাওয়া গিয়েছে। গবেষণা এও জানিয়েছে, অ্যান্টিবডি উৎপন্ন হওয়া বয়সের উপর নির্ভর করছে না বরং কার শরীরে কতখানি প্রভাব ফেলেছে করোনা ও অন্যান্য কী রোগ রয়েছে, তার উপরই তা বেশি নির্ভরশীল।

করোনার বিরুদ্ধে লড়াইতে কারা বেশি সক্ষম! গবেষণায় প্রকাশ চাঞ্চল্যকর তথ্য 2

পর্তুগালের Medicina Molecular Joao Lobo Antunes-এর তরফে এই গবেষণার লেখক মার্কের কথায়, “আমাদের শরীরের রোগ প্রতিরোধকারী ক্ষমতাই কোভিড-১৯-কে চিহ্নিত করে এবং পালটা অ্যান্টিবডি তৈরি করে, যা ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে বিশেষ ভূমিকা পালন করে।”গবেষণার জন্য তিনশোরও বেশি কোভিড হাসপাতালের করোনা রোগী ও স্বাস্থ্যকর্মীদের শরীরের অ্যান্টিবডির লেভেল টেস্ট করা হয়। টেস্ট হয় ২০০-রও বেশি করোনাজয়ীদের উপরও। এর জন্য আলাদা একটি গবেষকদের দল তৈরি করা হয়েছিল। দীর্ঘ ছয় মাস গবেষণার পর দেখা যায়, প্রথম তিন সপ্তাহ পর শরীরে অ্যান্টিবডির পরিমাণ উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং অদ্ভুতভাবে যাঁদের শরীরে যত প্রবলভাবে করোনা থাবা বসিয়েছিল, তাঁদের শরীরে অ্যান্টিবডির পরিমাণ ততটাই বেশি। এর সঙ্গে বয়সের কোনও সম্পর্ক নেই। একইসঙ্গে দেখা যায়, ৯০ শতাংশের শরীরেই সাত মাস পর্যন্ত অ্যান্টিবডির অস্তিত্ব রয়েছে।

এরপর দেখা হয়, করোনার বিরুদ্ধে সেই অ্যান্টিবডির লড়াই ক্ষমতা কতখানি। গবেষণা উঠে আসে আরও একটি তথ্য। মহিলাদের তুলনায় পুরুষদের শরীরেই বেশি অ্যান্টিবডি উৎপন্ন হচ্ছে। মার্ক জানান, জার্নালে এই সংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্য আছে। তাঁর কথাতেই স্পষ্ট, করোনার বিরুদ্ধে বেশি সময় পর্যন্ত কিন্তু লড়তে সক্ষম পুরুষরাই।