অধরাই রয়ে গেল নতুন সংসার পাতার স্বপ্ন, তমলুকে প্রেমিকের হাতেই খুন গৃহবধূ

160
অধরাই রয়ে গেল নতুন সংসার পাতার স্বপ্ন, তমলুকে প্রেমিকের হাতেই খুন গৃহবধূ 1
অধরাই রয়ে গেল নতুন সংসার পাতার স্বপ্ন, তমলুকে প্রেমিকের হাতেই খুন গৃহবধূ 2
অধরাই রয়ে গেল নতুন সংসার পাতার স্বপ্ন, তমলুকে প্রেমিকের হাতেই খুন গৃহবধূ 3

নিজস্ব সংবাদদাতা: মাত্র চারদিন আগেই পেতেছিলেন নতুন সংসার। পরকীয়া দ্বন্দে আগেই ছারখার হয়ে গেছিল প্রথম সংসার।  স্বামী আর সন্তানকে ছেড়ে তাই নতুন করে বাঁচার স্বপ্ন দেখেছিলেন প্রেমিকের হাত ধরে কিন্ত সেই প্রেমিকই রবিবার সাত সকালে গলার নলি কেটে খুন করল ২১বছরের মানসী  পতি রানাকে।

অধরাই রয়ে গেল নতুন সংসার পাতার স্বপ্ন, তমলুকে প্রেমিকের হাতেই খুন গৃহবধূ 4

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
রবিবার সকালে পূর্ব মেদিনীপুরের আবাসবাড়ি এলাকায় খোলা রাস্তার ওপর গলার নলি কাটা অবস্থায় ছটপট করতে দেখা যায়। স্থানীয় অধিবাসীরা চমকে ওঠেন এরকম বীভৎস কান্ড দেখে। তাঁরাই ফোন করে খবর দেন পুলিশে। কিন্তু পুলিশ আসার আগেই শেষ হয়ে যায় সব কিছু।

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
জানা গেছে মাত্র চারদিন আগেই মাত্র ৫০০টাকায় বিদ্যুৎ বিহীন ওই বাড়িটি ভাড়া নিয়েছিলেন মানসী ও সনাতন জানা। তমলুকে একটি ব্রয়লার দোকান রয়েছে সনাতনের আর সেই দোকান থেকেই নিয়মিত মাংস কেনার সুবাদেই পরিচয় হয়েছিল দু’জনের।
পুলিশ সূত্রে জানা গেছে নকীবসান গ্রামের মানসীর ৬ বছর আগে বিয়ে হয়েছিল তমলুকের সৈয়দপুর গ্রামের যুবক মন্টু রাণার সঙ্গে। তাঁদের সাড়ে তিন বছরের একটি মেয়েও রয়েছে।

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
বছর খানেক আগে কর্মসূত্রে মন্টুকে কলকাতা চলে যেতে হয়। স্বামী না থাকায় মানসীকেই বাজার হাট করতে হত আর সেই সুবাদে তমলুকের ভুবনেশ্বরপুর গ্রামের ধর্মতলা বাজারের ব্রয়লার দোকানের মালিক যুবক সনাতনের সঙ্গে মানসীর প্রণয় গড়ে ওঠে। ঘটনা জানাজানি হওয়ার পর মন্টুর ও মানসীর মধ্যে মনোমালিন্য শুরু হয়।বর্তমানে  স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে বিবাহ বিচ্ছেদের মামলাও চলছে আদালতে। কয়েকমাস আগে মানসী তমলুকের নকীবসানে বাপের বাড়িতে চলে যায়। আর চারদিন আগে তমলুকের আবাস বাড়ি এলাকায় একটি ভাড়া বাড়িতে ওঠে সনাতন জানা এবং মানসী পতি।

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
রবিবার বেলা সাড়ে দশটা নাগাদ মানসীকে যন্ত্রনায় ছটপট করতে করতে প্রাণ বাঁচাতে পালানোর চেষ্টায় বাড়ির বাইরে আসতে দেখা যায় এবং মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। এলাকার মানুষদের কাছ থেকে খবর পেয়ে পুলিশ এসে মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায়।

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
এরপরই তমলুক মহকুমা পুলিশ আধিকারিক অতীশ বিশ্বাসের  নেতৃত্বে একটি দল তল্লাশি চালিয়ে  তমলুক এলাকা থেকেই গ্রেপ্তার করে  সনাতনকে। কি কারনে এই কদিনের মধ্যেই সনাতন এই কাজ করল তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ। টানা জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে সনাতনকে।